19 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
রাত ২:১৩ | ২২শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
কৃষি পরিবেশ

মোরেলগঞ্জের ৮ ইউনিয়নের ধান ক্ষেতে কারেন্ট পোকার আক্রমণ, আতঙ্কিত ৪৫ হাজার কৃষক

আমন মৌসুম চলছে এখন। এ সময়ে মোরেলগঞ্জের ১৬টি ইউনিয়নের মধ্যে ৮টি ইউনিয়নের ধান ক্ষেতে কারেন্ট পোকার(বাদামি ঘাস ফড়িং) আক্রমণ দেখা দিয়েছে। সাধারণত যে ধান ক্ষেতে এ পোকার  আক্রমণ ঘটে থাকে রাতারাতি সে ধান ক্ষেত ফসলহীন হয়ে পড়ে। এরা ধান গাছের রস খেয়ে ফেলে। যার কারণে গাছ শুকিয়ে ভেঙ্গে পড়ে। আর এ পোকা যদি দ্রুত দমন করা না যায় তাহলে এলাকার ২৬ হাজার হেক্টর জমিতে দেখা দিবে শতভাগ ফসলহানি। এতে আতঙ্কিত এলাকার ৪৫ হাজার কৃষক।

কৃষকদের অভিযোগ, কৃষিযন্ত্রপাতি ও কর্মকর্তা সংকটের কারণে কৃষক ও কৃষি খাত এখন হুমকির মুখে। তবে কর্মকর্তারা বলছেন, এখন পর্যন্ত মাত্র ৮টি ইউনিয়নে পোকা লেগেছে। দমনের চেষ্টা চলছে।

উপজেলা কৃষি অফিসের দেওয়া তথ্য মতে, মোরেলগঞ্জের ১৬টি ইউনিয়ন ও পৌরসভায় মোট আমন ফসলি জমি রয়েছে ২৬ হাজার ৩১০ হেক্টর। উচ্চ ফলনশীল(উফশী) জাতের ধান ক্ষেত রয়েছে ৪ হাজার ৭৬০ হেক্টর। ৪৫ হাজার কৃষকের শ্রমের বিনিময়ে এখানে বাৎসরিক ধান উৎপাদনের লক্ষমাত্রা রয়েছে ৭৫ হাজার মেট্রিক টন। ইতোমধ্যে নিশানবাড়িয়া, জিউধরা, বহরবুনিয়া, বারইখালী, পঞ্চকরণ, বণগ্রাম, হোগলাপাশা ও তেলিগাতী ইউনিয়নের প্রায় ১৩ হাজার হেক্টর ধান ক্ষেতে কারেন্ট পোকা আক্রমন করেছে। নদীর তীরবর্তী ও নীচু এলাকা হওয়ায় এখানকার অধিকাংশ জমিতে বছরে একবারই স্থানীয় জাতের ধান চাষ হয়ে থাকে।

কৃষিবিদদের মতে, ধান ক্ষেতে বাদামি ঘাষ ফড়িং বা কারেন্ট পোকার আক্রমণ হলে সেখানে রাতারাতি গোটা ক্ষেত ধ্বংস হয়ে যায়। পোকারা দল বেধে ধান গাছের রস খেয়ে ফেলে। গাছ শুকিয়ে ভেঙ্গে পড়ে। এ পোকার আক্রমণে ক্ষতিগ্রস্ত ধান ক্ষেতের খড়, কুটা গরু মহিশেও খাবে না। জীবাণুমুক্ত করতে মাঠেই পুড়িয়ে ফেলতে হবে। এ পোকার হাত থেকে রক্ষা করতে পাওয়ার স্প্রেয়ার মেশিন দিয়ে ওষুধ ছিটানো জরুরি। কিন্তু সরকারিভাবে মোরেলগঞ্জে এ ধরণের মেশিনের কোন সরবরাহ নেই। ব্যাক্তিগতভাবে কয়েকজন কৃষকের রয়েছে যা প্রয়োজনের তুলনায় নগন্য।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রেহেনা পারভিন বলেন, কৃষকদেরকে সচেতন করে মাঠে কিটনাশক স্প্রে করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চলছে। লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। সকল ইউনিয়নে মাইকে সতর্ক বার্তা প্রচার করা হচ্ছে। তবে ৩৫জন উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তার পদ শূণ্য ও পর্যাপ্ত কৃষি যন্ত্রপাতি না থাকায় কিছুটা বেগ পেতে হচ্ছে বলেও এ কর্মকর্তা জানান।

এর আগে, গত বছর ধান পাকার পূর্ব মুহুর্তে নিশানবাড়িয়া ও জিউধরা ইউনিয়নে এ পোকার আক্রমণে শতশত বিঘা জমি থেকে এক ছটাক ধানও বাড়ি নিতে পারেনি বহু কৃষক।

“Green Page” কে সহযোগিতার আহ্বান

সম্পর্কিত পোস্ট

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত