32 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
রাত ১০:১৫ | ১৭ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ খ্রিস্টাব্দ | ২রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
মারাত্বক ঝুঁকিতে জলাভূমিকেন্দ্রিক জীববৈচিত্র্য
জীববৈচিত্র্য পরিবেশ বিশ্লেষন

মারাত্বক ঝুঁকিতে জলাভূমিকেন্দ্রিক জীববৈচিত্র্য

মারাত্বক ঝুঁকিতে জলাভূমিকেন্দ্রিক জীববৈচিত্র্য

পুরো পৃথিবীতে জলাভূমিকে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেশব্যবস্থা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। বিশেষ করে জলাভূমিকে কেন্দ্র করে বেঁচে থাকে বিভিন্ন প্রজাতির উদ্ভিদ ও প্রাণী। এদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল হলো এই জলাভূমি। দূষণে-দখলে সংকটাপন্ন আমাদের ঢাকা শহরের জলাভূমিকেন্দ্রিক জীববৈচিত্র্যে।

পরিবেশগত গুরুত্বের পাশাপাশি একটি দেশের সংস্কৃতি, ঐতিহ্য, সামাজিক জীবন—সবকিছুর সঙ্গে জলাভূমি ও জলাভূমিকেন্দ্রিক জীববৈচিত্র্যের গুরুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আছে। এর অর্থনৈতিক গুরুত্বও কম নয়।

কিন্তু দিনে দিনে জলাভূমিগুলো হারাচ্ছে তার জৌলুশ, আবাসস্থলের গুণগত মান হারিয়ে যাওয়ার ফলে জীববৈচিত্র্যের এক বড় অংশ আজ বিপন্ন। বিশেষ করে শহরের জীববৈচিত্র্য আজ সব থেকে বেশি ঝুঁকিতে।

ঢাকার অতীত ও বর্তমান অবস্থা আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে বুঝিয়ে দেয়, বাংলাদেশের শহরকেন্দ্রিক জলজ জীববৈচিত্র্য কতটা ঝুঁকিতে আছে। বাকি শহরগুলোতে সংরক্ষণের উদ্যোগ না নিলে একই পরিস্থিতি হবে সেগুলোরও।

বর্তমানে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা তার যাত্রা শুরু করে ১৭ শতকের শুরুতে। সেই সময় ঢাকা ছিল প্রাকৃতিক জলাভূমির বৈচিত্র্যময়তায় পরিপূর্ণ। সবুজে ভরপুর ছিল শহরটি। সময়ের পরিক্রমায় সেই ঢাকায় এখন বসবাস করা কঠিন।



জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড আরবানাইজেশন প্রসপেক্টের তথ্য অনুযায়ী, ঢাকার জনসংখ্যা ২০৩০ সালের মধ্যে পৌঁছে যাবে ২ কোটি ৭৪ লাখে। বর্তমানের ১১তম জনবহুল শহর থেকে তখন তা পরিণত হবে বিশ্বের ষষ্ঠ জনবহুল নগরীতে।

অধিক জনসংখ্যা তৈরি করছে অতিরিক্ত বর্জ্য, হচ্ছে মাত্রাতিরিক্ত দূষণ, যার ফলে কংক্রিটের চাপে ঢাকা ক্রমাগত হারিয়ে ফেলেছে তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর ঐশ্বর্য।

ঢাকা বাংলাদেশের ২২টি জীব পরিবেশীয় এলাকার মধ্যে যমুনা-ব্রহ্মপুত্র প্লাবনভূমিতে অবস্থিত, যা জলাভূমিকেন্দ্রিক প্রাকৃতিক সম্পদ আর জীববৈচিত্র্যে পরিপূর্ণ ছিল একসময়। শুরুতে তখন বুড়িগঙ্গার তীরে কিছু বসতি ছাড়া উত্তর দিকের মিরপুর, পল্টন, তেজগাঁও, কুর্মিটোলা ছিল বিশাল জঙ্গল আর দক্ষিণের কামরাঙ্গীরচরে ছিল বিশাল বাদাবন, বাকি এলাকাগুলোই মূলত ছিল জলাশয়। আর এগুলোকে কেন্দ্র করে বসতি ছিল বিভিন্ন বন্যপ্রাণীর, যারা শুধুই আজ বইয়ের পাতায়।

ঢাকা ও আশপাশের এলাকায় বাঘ, বিশাল, অজগর, বুনো শূকর, বনবিড়াল, মেছো বিড়ালসহ বিভিন্ন প্রাণীর আনাগোনাও ছিল। ৫০ বছর আগেও ঢাকা ছিল মানব আবাসস্থল, অফিস, দোকান আর রাস্তার চেয়ে জলা, বনজঙ্গল, তৃণভূমির সমন্বয়ে গঠিত এক অপূর্ব ক্যানভাস। বিভিন্ন তথ্য অনুযায়ী তৎকালীন সময়ে বর্তমান ঢাকার ব্যস্ত এলাকাগুলোতেও আনাগোনা ছিল বন্যপ্রাণীদের। ছিল তাদের অবাধ বিচরণ। কাঁটাবন থেকেও শোনা যেত শিয়ালের ডাক।

একসময় দেশি ময়ূর, লাল বনমোরগ, মেটে তিতির, কালো তিতিরদের বিচরণের এলাকাগুলো এখন পরিণত হয়েছে ইটকাঠ আর জঞ্জালের স্তূপে।

বুনো হাঁস, সারসদের জলাশয়গুলো প্রাণ হারিয়ে পচা ডোবায় পরিণত হওয়ার পাশাপাশি হয়ে উঠেছে বিভিন্ন ধরনের সংক্রামক ব্যাধির উৎপাদনকেন্দ্র। প্রকৃতি ধ্বংস করে মানুষ নিজেই তৈরি করেছে তার মৃত্যু কফিন। প্রকৃতি হারিয়ে ফেলছে তার ভারসাম্য।

২০১০ সালে প্রকাশিত একটি গবেষণার তথ্য ও স্যাটেলাইট ইমেজ বিশ্লেষণে দেখা যায়, ১৯৬০ সালে ঢাকার জলাভূমির পরিমাণ ছিল ২ হাজার ৯৫২ হেক্টর ও নিম্নভূমির পরিমাণ ১৩ হাজার ৫২৭ হেক্টর, যা ২০০৮ সালে এসে দাঁড়ায় যথাক্রমে ১ হাজার ৯৯০ হেক্টর ও ৬ হাজার ৪১৪ হেক্টরে।

ইনস্টিটিউট অব ওয়াটার মডেলিংয়ের (আইডব্লিউএম) সমীক্ষা রিপোর্ট অনুযায়ী ১৯৮৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত সময়ের মধ্যে হারিয়ে গেছে ঢাকার ১০ হাজার হেক্টরের বেশি জলাভূমি, খাল ও নিম্নাঞ্চল। এমনকি ১৯৯৫ সালে ঢাকা শহরের মোট আয়তনের ২০ শতাংশের বেশি ছিল জলাভূমি। একটি শহরের মোট আয়তনের জলাশয় থাকা প্রয়োজন ১০ থেকে ১৫ শতাংশ। কিন্তু ঢাকায় এখন টিকে আছে মাত্র ৩ শতাংশ।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, ১৯৯৬ সালে ঢাকায় পানির স্তর ছিল ২৫ মিটারে, যা ২০০৫ সালে ৪৫ মিটার, ২০১০ সালে ৬০ মিটার এবং ২০২৪ সালে এসে ৮৬ মিটারে পৌঁছেছে।



প্রতি বছরই ঢাকার ভূগর্ভস্থ পানির স্তর দুই থেকে তিন মিটার নিচে নেমে যাচ্ছে। অন্যদিকে বাসযোগ্যতা নিশ্চিত করতে হলে শহরের মোট ভূমির ১৫ শতাংশ সবুজ আচ্ছাদিত রাখতে হয়। ঢাকা শহরে এখন সেটি আছে মাত্র ৯ শতাংশ।

আর ঢাকায় যে বর্তমানে জলাশয়গুলো টিকে আছে, সেগুলোর প্রাকৃতিক পরিবেশ ও গুণগত মান কি ঠিক আছে? এর উত্তর হলো, না। ক্রমাগত দূষণের ফলে বেশির ভাগ জলাশয়ের পানি বিষাক্ত এখন।

পানির বিভিন্ন নিয়ামক যেমন দ্রবীভূত অক্সিজেন, কার্বন-ডাই-অক্সাইড ইত্যাদিতে এসেছে তাৎপর্যপূর্ণ পরিবর্তন, যা পরিবর্তন ঘটিয়েছে জলজ পরিবেশ ও প্রতিবেশ ব্যবস্থাপনায়। তাইতো পরিবর্তন ঘটেছে উৎপাদক থেকে সর্বোচ্চ খাদকের স্তর পর্যন্ত।

খাদ্য শৃঙ্খলে ঘটে গেছে এক বিশাল পরিবর্তন। আর এর ফলেই লক্ষ করবেন, কিছু কিছু জলাশয় ঠিকই আছে, জলাশয়ে পানিও আছে, কিন্তু সেখানে জীবের বৈচিত্র্য নেই। নেই পাখি, নেই তেমন কোনো স্তন্যপায়ী, সরীসৃপ বা উভচর।

সহজ কথায় যদি বোঝাতে চাই, এই তীব্র গরম আর তাপপ্রবাহে আপনি কখনোই বাইরে অবস্থান করবেন না, আপনি আপনার জন্য সুবিধাজনক একটি জায়গা খুঁজবেন বেঁচে থাকার অনুকূল পরিবেশ রয়েছে এমন। আর এই জীববৈচিত্র্যের ক্ষেত্রেও তা-ই ঘটেছে। এ কারণেই ঢাকা থেকে জলাশয়কেন্দ্রিক জীববৈচিত্র্য ক্রমাগত হারিয়ে গেছে।

তবে মনে রাখতে হবে, মানুষ কখনো কৃত্রিমভাবে প্রাকৃতিক পরিবেশের উন্নয়ন করতে পারবে না। জলাভূমির প্রাকৃতিক পরিবেশ নষ্ট করে, সেখানে কংক্রিট স্থাপনা করে সৌন্দর্য বর্ধন করে, কখনো মানুষ প্রাকৃতিক জৈব রাসায়নিক প্রক্রিয়াগুলো সম্পন্ন করতে পারবে না, যা বর্তমানে অহরহ ঘটছে।

পরিবেশের ছোট একটি নিয়ামকের অনুপস্থিতি ডেকে নিয়ে আসছে মহাবিপর্যয়। তাই সৌন্দর্যবর্ধনের নামে জলজ পরিবেশ নষ্ট করা থেকে বিরত থাকতে হবে। মানুষকে বুঝতে হবে, প্রকৃতিকে নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা তার হাতে নেই।

তেমনি আমাদের এখনই ঢাকার বাইরের শহরগুলোতে জলজ জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে গুরুত্ব দিতে হবে। যে কোনো প্রকল্পের পরিবেশগত সমীক্ষা খুব ভালোভাবে হওয়া জরুরি।

জলজ পরিবেশের মহাবিপর্যয় ঘটিয়ে গাছ লাগিয়ে কখনো জলজ পরিবেশকে সুস্থ রাখা সম্ভব নয়। আমাদের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে মানুষকে আরও বেশি সচেতন করতে হবে। সাময়িক সুবিধার জন্য বড় বিপর্যয়ের হাত থেকে বাঁচতে জলজ জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ আজ সময়ের দাবি।

“Green Page” কে সহযোগিতার আহ্বান

সম্পর্কিত পোস্ট

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত