30 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
ভোর ৫:৩৯ | ১লা অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় সিডরের একযুগ : আজও প্রিয়জনকে খুঁজে ফেরে
প্রাকৃতিক দুর্যোগ

ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় সিডরের একযুগ : আজও প্রিয়জনকে খুঁজে ফেরে

স্মরণকালের ইতিহাসের ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় সিডর আঘাত হানার আজ ১২ বছর পূর্ণ হলো । ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর রাতে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় সিডরের আঘাতে লন্ডভন্ড হয়ে যায় উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটসহ আশে পাশের অনেক অঞ্চল।

সিডরের আঘাতে সবচেয়ে বেশি বিধ্বস্ত বাগেরহাটের শরণখোলার জনপথ এখন পুরোপুরি হয়ে উঠেছে স্বাভাবিক । কিন্তু ছেলে-মেয়ে, মা-বাবা, ভাই-বোনসহ স্বজন হারানোর কষ্ট আজও ভুলতে পারেনি সুন্দরবনঘেষা শরণখোলা জনপদের মানুষগুলো। বলেশ্বর নদী পাড়ে মানুষ আজও প্রিয়জনকে খুঁজে ফেরে প্রতিনয়িত।

যারা স্বজনদের লাশ আজও খুঁজে পায়নি তাদের কষ্টের যেন নেই কোন সিমানা। সিডর আঘাত হানার ১২ বছর পর সেই নভেম্বর মাসেই আরেক ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ শরণখোলার মানুষকে নতুন করে আতঙ্কিত করে গেল।

সিডর বিধ্বস্ত বাগেরহাট জেলার শরণখোলা উপজেলার বলেশ্বর নদী পাড়ের বগী গ্রামের বাসিন্দা আলেতুন নেছারের (৭৬) স্বামী, দুই নাতি-নাতনি এবং পুত্রবধূকে জলোচ্ছাসে ভাসিয়ে নিয়ে গেছে। সিডরের ১২ বছরেও প্রিয়জন হারানোর শোক কাটিয়ে উঠতে পারেনি এই বৃদ্ধা।

আলেতুন নেছা জানান, সিডরের রাতে নাতনি শারমিন আক্তার, নাতি বাবু পঞ্চায়েত, পুত্রবধূ আসমা বেগম এবং স্বামী সেকেন্দার আলীকে সঙ্গে নিয়ে সাইক্লোন শেল্টারের যাওয়ার পথে হঠাৎ করে বুক সমান পানি চলে আসে। পানিতে তাদেরকে ভাসিয়ে নিয়ে যায়। সে একটি গাছ ধরে বেঁচে থাকে। আর স্বামী একটি গাছের ডাল ধরে বাঁচার চেষ্টা করেও শেষ পর্যন্ত রক্ষা হয়নি।

কেউ কেউ তাদের স্বজনকে আজও খুঁজে পায়নি। কোন কোন শিশু বাবা-মাকে হারিয়ে এতিমের খাতায়  লিখিয়েছে নাম। রাজৈর গ্রামে খানবংসের শিশু থেকে শুরু করে বিভিন্ন বয়সের ২৬ জন নারী-পুরুষ মারা গেছে সিডরের ভয়াবহ তান্ডবে।

২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর রাতে স্মরণকালের ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় সিডরের আঘাতে লণ্ডভণ্ড হয়ে যায় বাগেরহাট, পিরোজপুর, বরগুনা, বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী ও ঝালকাঠি জেলার বিভিন্ন গ্রাম।

গাবতলা গ্রামের বাহাদুর খান বলেন, সিডরে তার এক বোন, চাচা এবং চাচীকে ভাসিয়ে নিয়ে গেছে। কয়েকদিন পর ধানক্ষেত থেকে তাদের মৃতদেহ উদ্ধার করে দাফনও করা হয়।

উত্তর তাফাল বাড়ি গ্রামের মো. জিয়ারুল ফকির জানায়, সিডরের সময় তার বয়স ছিল মাত্র এক বছর। সিডরের কোন স্মৃতি তার মনে নেই। সিডর তাকে এতিম করে রেখে গেছে। এখন জীবিকার তাগিদে সে বলেশ্বর নদীতে মাছ ধরে।

একই এলাকার সেতারা বেগম জানান, সিডরের রাতে গলাসমান পানি সাঁতরিয়ে ছেলে-মেয়ে নিয়ে সাইক্লোন শেল্টারে গিয়ে আশ্রয় নেন। পরের দিন সকালে বাড়িতে এসে দেখি জলোচ্ছাসে বাড়িঘর সব কিছুই ভেসে গেছে। শুধুমাত্র ঘরের পোতা অবশিষ্ট আছে। পরে সরকারি-বেসরকারি সাহায্যে সহযোগিতায় ধীরে ধীরে পরিবারে সচ্ছলতা ফিরে আসে।

জানা গেছে, ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর রাতে স্বরণকালের ভয়াবহ সিডরের আঘাতে লন্ডভন্ড হয়ে যায় বাগেরহাট, পিরোজপুর, বরগুনা, বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী ও ঝালকাঠি জেলার বিভিন্ন গ্রাম। সিডর প্রথমে সুন্দরবনের পূর্বাংশ লন্ডভন্ড করে উপকূলে আচড়ে পরে। জলোচ্ছাসে এক গ্রামের মানুষকে ভাসিয়ে নিয়ে গেছে অন্য গ্রামে। শিশু থেকে শুরু করে বিভিন্ন বয়সের নারী পুরুষ মারা গেছে। ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাট, গাছপালা, মৎস্যখামার ও গবাদিপশুসহ মানুষের সহায় সম্পদ ভেসে গেছে। দিনের পর দিন নদী-খালে গবাদিপশুর সঙ্গে মানুষের মৃতদেহ ভাসতে দেখা গেছে। সিডরে সব চেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় বাগেরহাট জেলার শরণখোলা উপজেলা। এখানে সিডরের আঘাতে নিহত অনেকের লাশ এখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি। সরকারি হিসেবে সিডরে শুধুমাত্র শরণখোলা উপজেলায় ৬৯৫ জন মারা গেছে এবং এখনও পর্যন্ত ৭৬ জন নিখোঁজ আছে। তবে বেসরকারি হিসেবে মৃত্যুর সংখ্যা আরো বেশি। কাছাকাছি সাইক্লোন সেল্টার না থাকার কারণে সিডরে এতোবেশি সংখ্যক মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসকের দপ্তর সূত্র থেকে জানা যায়, সিডরে জেলায় সরকারি হিসেবে ৯০৮ জন মারা গেছে, নিখোঁজ আছে ৭৬ জন। সিডরে বাগেরহাটের এক হাজার ৬২৭ বর্গ কিলোমিটার এলাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ৬৫ হাজার ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ক্ষতির মুখে পড়ে চার লাখ মানুষ। সরকারি হিসেবে টাকার অংকে ক্ষয়ক্ষতি পরিমাণ প্রায় ৫০০ কোটি টাকা। সূত্র : ইউএনবি

সম্পর্কিত পোস্ট

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত