29 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
বিকাল ৩:০৪ | ২৭শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
প্রাকৃতিক পরিবেশ ও পরিবেশের কল্যাণে কীটপতঙ্গের ভূমিকা
জানা-অজানা পরিবেশ বিজ্ঞান পরিবেশ বিশ্লেষন প্রাকৃতিক পরিবেশ মো. মিকাইল আহমেদ

প্রাকৃতিক পরিবেশ ও প্রতিবেশ কল্যাণে কীটপতঙ্গের ভূমিকা

প্রাকৃতিক পরিবেশ ও প্রতিবেশ কল্যাণে কীটপতঙ্গের ভূমিকা

মো. মিকাইল আহমেদ

কীটপতঙ্গ (Insects):

সৃষ্টি জগতের ক্ষুদ্র প্রাণী কীটপতঙ্গ। বৈচিত্র্যময় এ পৃথিবীর প্রকৃতিকে পূর্ণতা দিতে কীটপতঙ্গের জুড়ি নেই। কত রঙ্গের, কত ঢংয়ের হাজারো প্রজাতির কীটপতঙ্গের উড়াউড়ি মহান সৃষ্টিকর্তার অনুপম দক্ষতার জানান দেয়।

যদিও আকারে এরা ক্ষুদ্র তবু এদের মধ্যেও আছে প্রেম, ভালোবাসা, বিরহ ও বংশবিস্তারের চিরাচরিত রীতি। মানুষের উপকারে এদের অবদান অপরিসীম। এ কীটপতঙ্গরাই দিনরাত মানুষের সেবা করে যাচ্ছে।

Collection of various insects from A history of the earth … | Flickr

তাদের প্রত্যেকেরই রয়েছে অসামান্য অবদান, হোক তা ক্ষুদ্র পিঁপড়া, মশা, মাছি, মৌমাছি বা অন্য কোনো পোকামাকড়। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন তাই তো পবিত্র কোরআনে বিশাল সাগর, পাহাড়ের বর্ণনা যেমন দিয়েছেন, তেমনি দিয়েছেন ক্ষুদ্র পিঁপড়া বা মশা-মাছিরও।

মহাগ্রন্থ পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, নিশ্চয় আল্লাহপাক মাছি কিংবা তার চেয়েও ছোট কোনো কিছুর উপমা দিতে লজ্জা করেন না (সূরা বাকারা : ২৬) এবং  আকাশমণ্ডলী পৃথিবী এবং দুইয়ের মধ্যবর্তী কোনো কিছুই আমি অযথা সৃষ্টি করিনি (সুরা: হিজর, আয়াত:৮৫ (অংশ বিশেষ)

আমাদের পরিচিত কিছু তুচ্ছ  কীটপতঙ্গের উপকারিতা বিষয়ে আলোচনা করলেই আমরা অবাক হবো যে কীটপতঙ্গ প্রাকৃতিক পরিবে- প্রতিবেশ ও মানবজাতির কল্যাণে কত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে চলেছে।

পিঁপড়া (Ants):

পিঁপড়া ফর্মিসিডি গোত্রের একটি কীট বা পতঙ্গের নাম। ক্ষুদে এ প্রাণীটি অত্যন্ত পরিশ্রমী। ছয় পায়ে ভর করে হাঁটা এ প্রাণীটি সাধারণত দুই থেকে পাঁচ মিলিগ্রাম ওজনের হয়ে থাকে।

ওজনের হিসেবে বলতে গেলে একটি পিঁপড়া একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের চেয়ে প্রায় সোয়া এক কোটি গুণ ছোট। তাই বলে পিঁপড়াকে খুবই তুচ্ছ একটি প্রাণী ভাবার কোন অবকাশ নেই।

ছোট অথবা বড় আল্লাহর প্রতিটি সৃষ্টির পেছনেই রয়েছে কোন না কোন রহস্য। ক্ষুদ্র এ প্রাণীটি তার শরীরের ওজনের চেয়েও বিশ গুণ বেশি ওজন বহন করতে পারে যা সত্যিই বিস্ময়কর।

Ants: Phylogeny and Classification | SpringerLink

আকৃতিতে ক্ষুদ্র হলেও পিঁপড়ারা বয়সের বিচারে পৃথিবীর প্রাচীন। সংখ্যার বিচারে বিশ্বের অন্যতম কীট পিঁপড়া। পিঁপড়া গবেষকরা বলেন, পৃথিবীতে মানুষের তুলনায় পিঁপড়ার সংখ্যা দশ লাখ গুণ বেশি।

শুধুই কি তাই? পৃথিবীতে যত পিঁপড়া আছে, তাদের জৈববস্তু (Biomass) পৃথিবীতে বসবাসকারী সাতশ’ কোটি মানুষের সমান। বিস্মিত হলেও এটাই সত্য, ক্ষুদ্র এ প্রাণীটিও মানুষের মতোই সংঘবদ্ধ হয়ে বসবাস করে।

মানুষের ধারণা পিঁপড়া শুধু ক্ষতিই করে থাকে। কিন্তু তারা এটা জানে না, পরিশ্রমী এ পতঙ্গটি মানুষের উপকারী বন্ধুও বটে। চীনের বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, বায়ু ও জলপ্রবাহ এবং জৈব পদার্থ বাড়ানোর মাধ্যমে মাটির উপকারিতা বাড়ায় পিঁপড়া।

একই সঙ্গে মাটিতে বাসা বাঁধার সময় পতঙ্গটি আশপাশে যে স্তূপ বা ঢিবি বানায়, মাটির পানি ধরে রাখার ক্ষেত্রেও তা সহায়ক ভূমিকা রাখে (ScienceDaily)।

পিঁপড়াকে সৃষ্টি করা হয়েছে মানুষের কল্যাণার্থেই। সেটা আমরা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ না করলে বুঝতে সফল হব না।যদিও বাহ্যিক দৃষ্টিতে একে অপকারী মনে হয়,  প্রকৃতপক্ষে পিঁপড়াও মানুষের পরমহিতৈষী।

জ্ঞান অর্জনের অন্যতম উৎস হতে পারে ক্ষুদ্র এ পিঁপড়া। অলসতা পরিহার করে কীভাবে পরিশ্রমী হওয়া যায় সে শিক্ষা আমরা লাভ করতে পারি পিঁপড়া থেকে। পিঁপড়ার কাছ থেকে শৃঙ্খলা শিখতে সংকোচের কিছু নেই। তাই অযথা যেন এ সৃষ্টির প্রতি আমরা কখনই অবিচার না করি। অপ্রয়োজনে তাদের বিনাশ না করি।

বাস্তুতন্ত্রে পোকামাকড়ের ভূমিকা (Role of Insects in Ecosystem):

জৈব সম্প্রদায়গুলি পরিবেশগত কার্যাবলী এবং বাস্তুতন্ত্র পরিষেবা প্রদানের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। প্রাণী জৈববস্তু এবং পৃথিবীতে জীবনের একটি প্রভাবশালী রূপ হিসাবে পোকামাকড় তাদের প্রাকৃতিক বাস্তুতন্ত্রের জন্য এবং বিস্তৃত পরিবেশগত ক্রিয়াকলাপের প্রতিনিধিত্ব করে যার মধ্যে তৃণভোজী, মাংসাশী এবং পচনশীল দ্রব্য ভক্ষণকারী প্রাণী রয়েছে।

পোকামাকড় সমস্ত স্থলজ বাস্তুতন্ত্রে প্রচুর পরিমাণে রয়েছে এবং তাদের জীববিজ্ঞানের প্রায় যেকোনো দিক থেকেই প্রজাতির মধ্যে বিস্তৃত বৈচিত্র্য প্রদর্শন করে। [2]

কৃষিতে পোকামাকড় (Insects in Agriculture):

যতদিন মানুষ শস্য কৃষি অনুশীলন করেছে, ততদিন তাদের ফসলে কীটপতঙ্গ দেখা দিয়েছে এবং কীটপতঙ্গকে প্রধানত বেঁচে থাকার প্রতিযোগিতায় প্রতিযোগী হিসাবে বিবেচনা করা হয়েছে। পোকা-উদ্ভিদের সম্পর্ক হল প্রভাবশালী জৈব মিথস্ক্রিয়া। [2]

পোকামাকড় মানুষের বেঁচে থাকার জন্য অত্যাবশ্যক, কারণ কীটপতঙ্গ দ্বারা প্রদত্ত ইকোসিস্টেম ফাংশন ছাড়া ফসল উৎপাদন করা যায় না। বিশ্বের প্রায় ৭২% ফসল পরাগায়নের জন্য কীটপতঙ্গের উপর নির্ভরশীল। [3]

মৌমাছি (Bees):

মৌমাছি নামের এ ক্ষুদ্র প্রাণীটি পিঁপড়ারই ঘনিষ্ঠ আত্মীয়। মৌমাছি মধু ও মোম উৎপাদন করে। এটি উপাকারী পতঙ্গ। প্রায় বিশ হাজার প্রজাতির মৌমাছি লাখ লাখ বছর ধরে পৃথিবীতে টিকে রয়েছে।

উদ্ভিদের পরাগায়ণে মৌমাছি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ১৭০টি ঘ্রাণ সংবেদী ইন্দ্রিয় দিয়ে মৌমাছি অনেক দূর থেকেও নির্দিষ্ট ফুলের ঘ্রাণ পায়। এরা কঠোর পরিশ্রমী প্রাণী। গড় হিসাবে সব মৌমাছি প্রায় নব্বই হাজার মাইল পথ পাড়ি দেয় চাকের মধু সংগ্রহ করতে। তারা মানুষের জন্য মধু সংগ্রহ করে।

পোকামাকড় তাদের বৈচিত্র্য, পরিবেশগত ভূমিকা, কৃষি, মানব স্বাস্থ্য এবং প্রাকৃতিক সম্পদের উপর প্রভাবের কারণে গুরুত্বপূর্ণ। পোকামাকড় সমস্ত স্থলজ বাস্তুতন্ত্রের জৈবিক ভিত্তি তৈরি করে।

honeybee | Characteristics, Habitat, Life Cycle, & Facts | Britannica

তারা পুষ্টির চক্র চালায়, উদ্ভিদ পরাগায়ন করে, বীজ ছড়িয়ে দেয়, মাটির গঠন ও উর্বরতা বজায় রাখে, অন্যান্য জীবের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করে এবং অন্যান্য জীবের জন্য একটি প্রধান খাদ্য উৎস হিসেবে কাজ করে।

কৃষিতে বেশিরভাগ প্রধান কীটপতঙ্গ হল অ-নেটিভ প্রজাতি যা একটি নতুন ইকোসিস্টেমে প্রবর্তিত হয়েছে। পোকামাকড় প্রাণীজগতে অনন্য বৈশিষ্ট্যগুলি উদ্ভাবন করেছে যা বায়োমেকানিক্স এবং বায়োইঞ্জিনিয়ারিং বিশেষজ্ঞদের কাছে বিস্ময়কর কারণ অনেকগুলিই মানুষের সাম্প্রতিক আবিষ্কার। [1]

‘কার্ল ভন ফ্রিচ’(karl von frisch) ১৯৭৩ সালে মৌমাছির আচরণ ও যোগযোগের উপর গবেষণার জন্য নোবেল পুরষ্কার পেয়েছেন। কোন নতুন ফুলের বাগানের সন্ধান পেলে মৌমাছি মৌচাকে ফিরে আসে।

তারপর অন্যান্য সাথীদেরকে সে বাগানের হুবুহু দিক ও মানচিত্র বলে দেয় তার নাচ’নামক আচরণ দ্বারা। অন্যান্য শ্রমিক মৌমাছিকে তথ্য দেয়ার লক্ষ্যে এ আচরণের বিষয়টি এখন বৈজ্ঞানিকভাবে আবিষ্কৃত সত্য। ক্যামেরার সাহায্যে ছবি গ্রহণ সহ অন্যান্য পদ্ধতির মাধ্যমে এটি প্রমাণিত হয়েছে।

মধুর ঔষধি প্রভাব

মধু অনেকদিন ধরেই প্রাকৃতিক ওষুধ হিসেবে পরিচিত। চলমান চিকিৎসা গবেষণায় মধুর অনেক উপকারিতা পাওয়া গেছে। সহস্রাব্দ কাল ধরে মধু একটি উপকারী ঔষধ হিসাবে ব্যবহার হয়ে আসছে। মধুতে চিনির তুলনায় কম গ্লাইসেমিক রয়েছে যার কারণে চিনির মতো গ্লুকোজের মাত্রা বাড়ায় না।

এটি চিনির চেয়ে মিষ্টি স্বাদযুক্ত এবং খাবারে কম মিষ্টি ব্যবহার করলেও চলে। একটি গবেষণায় বিশেষজ্ঞরা খুঁজে পেয়েছেন মধুর ব্যবহার ভেজাল চিনির পরিবর্তে গ্লুকোজের মাত্রা স্থিতিশীল রাখার জন্য কার্যকর পদ্ধতি। ইরানের একটি সাম্প্রতিক প্রতিবেদন দেখায় যে মধু কীভাবে কিডনির ক্ষতিকারক বৃদ্ধির এক ধরণের রেনাল সেল কার্সিনোমাকে প্রভাবিত করে।

বিজ্ঞানীরা ট্র্যাক করেছেন যে মধু নামক অমৃতটি ম্যালিগন্যান্সি কোষগুলিকে বহুগুণ থেকে রক্ষা করতে কার্যকর এবং তারা অনুমান করেছেন যে এটি ক্যান্সারের থেরাপি হিসাবে আরও ফলপ্রসূ।  হৃদয় রোগ (Cardiovascular disease) এ মধু অত্যন্ত উপকারী।

মধুতে থাকা ক্যান্সার প্রতিরোধক (Antioxidant) করোনারি অসুস্থতার ঝুঁকি কমানোর সাথে সম্পর্কিত। গবেষণায় দেখা গেছে যে ইউক্যালিপটাস মধু, সাইট্রাস মধু এবং ল্যাবিয়েট মধু উপরের শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ এবং কিছু লোকের তীব্র কাশির জন্য একটি নির্ভরযোগ্য কাশি দমনকারী হিসাবে কাজ করতে পারে। [4]

মধুকে একটি সুষম খাদ্য হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং মধু সব বয়সের পুরুষ ও মহিলাদের জন্য সমানভাবে জনপ্রিয়। মধু ফ্রিজে রাখার দরকার নেই,[5] এটি কখনই নষ্ট হয় না এবং এটি একটি শুষ্ক জায়গায় ঘরের তাপমাত্রায় খোলা ছাড়াই সংরক্ষণ করা যেতে পারে।[6]

What are the health benefits of honey? - Quora

মৌমাছি পাহাড়ে, গাছে এবং মানুষের বাসস্থানে তাদের মৌচাক তৈরি করে; তাদের দেহের ভিতর থেকে বিভিন্ন রঙের পানীয় আসে যা মানবজাতির জন্য রোগ নিরাময় করে। নিঃসন্দেহে এর মধ্যে একটি নিদর্শন রয়েছে।

যদিও মধু সম্পর্কে বেশ কয়েকটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে; তাদের বেশিরভাগই জৈব রাসায়নিক বিশ্লেষণ, খাদ্য এবং অখাদ্য বাণিজ্যিক ব্যবহারের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছে।

মধু চোখের রোগ, হাঁপানি, গলার সংক্রমণ, যক্ষ্মা, তৃষ্ণা, হেপাটাইটিস, ক্লান্তি, মাথা ঘোরা, হেপাটাইটিস, কোষ্ঠকাঠিন্য, কৃমির উপদ্রব, পাইলস, একজিমা, আলসার নিরাময় এবং ঐতিহ্যগত ওষুধে ক্ষত সহ বিভিন্ন রোগের জন্য ব্যবহৃত হত।[7] [8]

এর মধ্যে এমন শক্তিশালী প্রমাণ রয়েছে যা ডায়াবেটিস মেলিটাসের চিকিৎসায় মধুর উপকারী প্রভাবের ইঙ্গিত দেয়। সাধারণ এবং হাইপারলিপিডেমিক রোগীদের ক্ষেত্রে এটি রক্তের লিপিড, হোমোসিস্টাইন এবং সি-রিঅ্যাকটিভ প্রোটিনের পরিমাণও হ্রাস করে।

যাইহোক, বেশ কয়েকটি প্রশ্ন রয়ে গেছে, বিশেষত যেহেতু এটি অক্সিডেটিভ স্ট্রেস এবং হাইপারগ্লাইসেমিয়া উভয়কেই লক্ষ্য করে এমন প্রয়োগের মাধ্যমে ডায়াবেটিস মেলিটাস নিয়ন্ত্রণের সম্ভাবনার সাথে সম্পর্কিত; তদুপরি, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে মধুর থেরাপিউটিক প্রভাব শুধুমাত্র গ্লাইসেমিয়া নিয়ন্ত্রণে সীমাবদ্ধ নয় বরং সংশ্লিষ্ট বিপাকীয় জটিলতা রোগের উপশম করার জন্যও প্রসারিত হতে পারে।[8]

ক্যান্সার প্রতিরোধে মধু

বর্তমান গবেষণা দেখায় যে মধু বিভিন্ন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ক্যান্সার বিরোধী প্রভাব প্রয়োগ করতে পারে। গবেষণায় ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে যে মধুর একাধিক ক্যান্সার প্রতিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে অ্যাপোপটোসিস (Apoptosis), অ্যান্টিমিউটাজেনিক (Antimutagenic), অ্যান্টিপ্রোলাইফেরেটিভ (Antiproliferative) এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি (Anti-inflammatory)। মধু রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা পরিবর্তন করে।[9]

মাছি (Fly)

মাছি যখন কোন খাদ্যে বসে তখন মাছির যে ডানায় রোগ জীবাণু থাকে সে ডানাটি খাদ্যে ডুবিয়ে দেয়। আর মাছির অপর ডানায় থাকে প্রতিরোধক ওষুধ।

মাছিকে যদি ডুবিয়ে দেয়া হয় তাহলে প্রতিরোধক মারাত্মক জীবাণুগুলোকে ধ্বংস করে দেয় খাদ্যের সঙ্গে মিশে। তারপর সেই খাদ্য অনুকূলে থাকে স্বাস্থ্য ও সুস্থতার জন্য । নতুবা এই খাদ্যই মানব ধ্বংসের কারণ হতে পারে জীবাণুযুক্ত হয়ে।

The world woodlouse flies (Diptera, Rhinophoridae)

মাছি একটি পতঙ্গের নাম। এক জোড়া পাখা প্রাণী জগতের সবচেয়ে দ্রুত এ পতঙ্গের মূল রহস্য। যার একটি পাখায় রয়েছে মানবদেহের জন্য রোগ প্রতিষেধক।

হজরত আবু হুরাইরা (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘যখন তোমাদের কারও পানীয় বস্তুর মধ্যে মাছি পড়ে, তখন সে যেন তাকে (মাছিকে) তার মধ্যে ডুবিয়ে দেয় তারপর তাকে বাইরে ফেলে দেয় কেন না ওর এক ডানায় রোগ আর অন্য ডানায় আরোগ্য রয়েছে [ সহিহ বুখারি : ৩৩২০, ৫৭৮২]

যখন জ্ঞানবিজ্ঞানের অগ্রগতি হলো, তখন ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাস জীবাণু সম্পর্কে জ্ঞানের অগ্রগতির মাধ্যমে বর্ণিত হচ্ছে, মাছি মানুষের শত্রু, সে রোগজীবাণু বহন করে এবং স্থানান্তরিত করে। মাছির ডানায় রোগজীবাণু রয়েছে তাতে কোন সন্দেহ নেই।

সৌদি আরবের রিয়াদে অনুষ্ঠিত অষ্টম চিকিৎসা সম্মেলনে কানাডা থেকে দু’টি গবেষণা-রিপোর্ট পাঠিয়েছিল যাতে বর্ণিত ছিল মাছিতে এমন কোন বস্তু রয়েছে যা জীবাণুকে ধ্বংস করে দেয়। শাইখ মোস্তফা এবং শাইখ খালীল মোল্লা এই বিষয়ে জার্মান ও ব্রিটেন থেকে রিসার্চগুলো ধারাবাহিক সংগ্রহের মাধ্যমে একটি বই বের করেছেন যার মূল বিষয় ছিল :

নিশ্চয়ই মাছির একটি ডানায় রয়েছে রোগ, আর অপরটিতে রয়েছে রোগ নাশক ঔষধ’  [ সহিহ বুখারি]

কিছু কীটপতঙ্গের ডানা যেমন সিকাডা (Cicada ) এবং ড্রাগনফ্লাই ন্যানোপিলার (Dragonfly nanopillars) কাঠামোর অধিকারী যা যোগাযোগের সময় ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলে।

যাইহোক, আজ অবধি ব্যাকটেরিয়াজনিত মৃত্যুর সুনির্দিষ্ট প্রক্রিয়াগুলি অজানা। উন্নত ইমেজিং সরঞ্জাম, কার্যকরী অ্যাসেস এবং প্রোটিওমিক বিশ্লেষণের পরিসর ব্যবহার করে, ব্রিস্টল বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষণায় ন্যানোপিলারগুলি ব্যাকটেরিয়াকে ক্ষতি করতে পারে এমন নতুন উপায়গুলি চিহ্নিত করেছে।

বো সু, ব্রিস্টল বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিকেল এর অধ্যাপক যিনি গবেষণাটির লেখক, বলেছেন— ‘‘ন্যানোপিলার দ্বারা ব্যাকটেরিয়া কোষের খামের বিকৃতি এবং পরবর্তী অনুপ্রবেশের পাশাপাশি, বিশেষত নেতিবাচক ব্যাকটেরিয়াগুলির জন্য এই ন্যানোপিলারগুলির অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্যগুলির মূল চাবিকাঠিও শারীরিক প্রতিবন্ধকতা এবং অক্সিডেটিভ স্ট্রেস আনয়নের ক্রমবর্ধমান প্রভাব হতে পারে৷’’ [10]

টোকিও ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক হুয়ান আলভারেজ ব্রাভো উল্লেখ করেছেন যে শেষ পর্যন্ত একটি হাসপাতালে মাছি গ্রহণ করা যায়! কিন্তু শীঘ্রই আমরা মাছি থেকে নির্যাস নিয়ে গঠিত অনেক রোগের দ্রুত চিকিৎসার সাক্ষী হব। [11]

Reference

  • [1] The Importance of Insects by Geoffrey G. E. Scudder, 2017
  • [2] Samways, M.J. (1993) Insects in Biodiversity Conservation: Some Perspectives and Directives. Biodiversity & Conservation, 2, 258-282. https://doi.org/10.1007/BF00056672
  • [3] Dicke, M. (2017) Ecosystem Services of Insects. In: Van Huis, A. and Tomberlin, J.K., Eds., Insects as Food and Feed: From Production to Consumption, Wageningen Academic Publishers, Wageningen, The Netherlands, 61-76.
  • [4] Ghosh, Tanmay. Potential Natural Antioxidant and Other Health Benefits of Honey and its Possible Limitations International Journal of Research and Analysis in Science and Engineering, Volume 1, Issue 4; July 2021.
  • [5] Hassapidou M, Fotiadou E, Maglara E, Papadopoulou SK. Energy intake, diet composition, energy expenditure, and body fatness of adolescents in Northern Greece. Obesity (Silver Spring) 2006;14:855–62. [PubMed] [Google Scholar]
  • [6] Babacan S, Rand AG. Characterization of honey amylase. J Food Sci. 2007;72:C050–5. [PubMed] [Google Scholar]
  • [7] Irving TB, Ahmad K, Ahsan MM. The Qur’an-Basic Teachings. Ch. 5. Bath: Pitman Press; 1987. The story of creation. [Google Scholar]
  • [8] Yapucu Günes U, Eser I. Effectiveness of a honey dressing for healing pressure ulcers. J Wound Ostomy Continence Nurs. 2007;34:184–90. [PubMed] [Google Scholar]
  • [9] Eddy JJ, Gideonsen MD, Mack GP. Practical considerations of using topical honey for neuropathic diabetic foot ulcers: A review. WMJ. 2008;107:187–90. [PubMed] [Google Scholar]
  • [10] University of  Bristol. “Insect wings hold antimicrobial clues for improved medical implants.” ScienceDaily. ScienceDaily, 6 April 2020. <www.sciencedaily.com/releases/2020/04/200406103852.htm>.
  • [11] Juan Alvarez Bravo, 1994. The ointment in the fly: antibiotics. New antibiotic derived from a common fly.The Economist (US)
“Green Page” কে সহযোগিতার আহ্বান

সম্পর্কিত পোস্ট

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত