31 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
রাত ১:৫১ | ১৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
পরিবেশ রক্ষায় অভিনব উপায়ে জমি চাষ
পরিবেশ রক্ষা

পরিবেশ রক্ষায় অভিনব উপায়ে জমি চাষ

পরিবেশ রক্ষায় অভিনব উপায়ে জমি চাষ

গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমনের জন্য শুধু গাড়ি ও কলকারখানা দায়ী নয়, চাষবাস ও গবাদি পশু পালনও জলবায়ুর এই ক্ষতির শরিক৷ জার্মানির বাভেরিয়া রাজ্যে এক অভিনব প্রকল্পের মাধ্যমে জমির বিকল্প ব্যবহারের চেষ্টা চলছে৷

জার্মানির সোয়েবিয়া অঞ্চলের জলাভূমিতে এক্সমুর প্রজাতির পনি বা টাট্টু ঘোড়া এবং মোষ আনা হয়েছে৷ এই প্রাণী নাকি পরিবেশ সংরক্ষণে সহায়তা করবে৷ অনেক দিন ধরে আজকের জলাভূমি শুকনা ছিল৷ সেখানে চাষবাসের কারণে বিশাল মাত্রায় গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন হতো৷ তবে যবে থেকে জমি প্লাবিত করা হয়েছে, সেখানকার মাটি থেকে অনেক কম পরিমাণ কার্বন-ডাই-অক্সাইডের নির্গমন ঘটছে৷

কিন্তু কৃষিজমির মালিক কি প্লাবিত জমি থেকেও আয় করতে পারবেন? স্থানীয় সমিতির কৃষি ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে আনিয়া শুমান সেই জমির নতুন করে কাজে লাগানোর চেষ্টা চালাতে চান৷ কিন্তু তার জন্য চাষিদের সহায়তা প্রয়োজন৷



আনিয়া বলেন, ‘বলা বাহুল্য চাষিদের প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া অবশ্যই জমি প্লাবিত করার বিরুদ্ধে ছিল৷ কারণ ৫০ বছর আগে তাদের সেই জমি শুকিয়ে ফেলতে হয়েছিল৷ এখন কেন আবার পানি ভরিয়ে ফেলা হবে, তা মাথায় ঢোকানো মুশকিল৷ কিন্তু জলবায়ুর খাতিরেই সেটা করা প্রয়োজন৷ আমরা তাদের বিকল্প আয়ের সুযোগ করে দিতে চাই৷ চাষিরা জমিতে প্রাণীর বিচরণের মাধ্যমে আয় করতে পারেন৷’

চাষি হিসেবে ক্রিস্টিয়ান মায়ার এমন আইডিয়া গ্রহণ করেন৷ ২০১৫ সালে তিনি সেখানে মোষের পাল নিয়ে আসেন৷ সেটা খুব বড় ঝুঁকি ছিল বটে৷ তবে প্লাবিত জমিতে মোষ মোটামুটি নিজেদের মানিয়ে নিতে পেরেছে৷

নিজের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে ক্রিস্টিয়ান বলেন, ‘দুধ দেওয়া অথবা হলস্টাইন জাতের গরু সম্ভবত এমন জমিতে সুবিধা করে উঠতে পারবে না৷ কিন্তু মোষ নিয়ে আমাদের সেই সমস্যা নেই৷ এই প্রাণী দিব্যি সেখানে খোরাক পায় এবং সেটির মাংস ভালই বিক্রি হয়৷ সাধারণ জাতের গরুর সঙ্গে তুলনাই হয় না৷’



এমন পশুপালনের জন্য ক্রিস্টিয়ান মায়ার সরকারি ভরতুকিও পান৷ অব্যবহৃত জমিতে আগাছা কাটার জন্যও ভরতুকি আসে৷ ফ্রাইসিং এলাকার জমি আবার প্লাবিত করার প্রক্রিয়ার সময় বিজ্ঞানীরা নিয়মিত পরিমাপ চালিয়ে গেছেন৷ ড. টিম আইকেনশাইট তাঁদেরই একজন৷

তিনি বলেন, ‘আমরা গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমনের দিকে নজর রাখি৷ পেছনেই সেটা দেখা যাচ্ছে৷ এটা একটা স্বয়ংক্রিয় প্রণালী, যার মাধ্যমে ‘ট্রেস গ্যাস’ পরিমাপ করা হয়৷ মাটিতে পোঁতা ঢাকা দেওয়া কাঠামোয় তা দেখা যায়৷ ঢাকার নীচে আমরা কার্বন-ডাই-অক্সাইড, নাইট্রাস অক্সাইড বা মিথেনের মতো নির্দিষ্ট কোনো গ্যাসের ওঠানামা টের পাই৷ সেগুলির পরিমাণ বাড়া বা কমার ভিত্তিতে আমরা নিখুঁতভাবে কোনো চিহ্নিত জায়গার গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমনের পরিমাণ নির্ণয় করতে পারি৷ পানির স্তর অনুযায়ীও সেটা মাপা হয়৷’

এমন পানিভরা পরিবেশের উপযুক্ত কোন উদ্ভিদ সবচেয়ে বেশি মুনাফা আনতে পারে, বিজ্ঞানীরা একই সঙ্গে সেটাও খতিয়ে দেখছেন৷ রিড ক্যানারি জাতের পাশাপাশি ইয়খেন ক্রাউস সেজেস ঘাসও চাষ করছেন৷ খামারে তিনি আলপাকা প্রাণীর ব্রিডিং বা বংশবৃদ্ধি করছেন৷

তার প্রাণীরা সাধারণত খোরাক হিসেবে খড় পায়৷ তবে সন্ধ্যায় তাজা সেজেস ঘাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ প্রাণীগুলি আদৌ সেই ঘাস খাবে কিনা, খেলে কীভাবে খাবে তা দেখার জন্য ইয়খেন উদগ্রীব হয়ে আছেন৷ এই প্রথম সেজেস ঘাসের খেত ছাঁটা হচ্ছে৷ সতীর্থ হিসেবে ক্রিস্টিয়ান মায়ার নিজের বার মোয়ার যন্ত্র দিয়ে সেই কাজ করে দিচ্ছেন৷ ঘাস কাটতে কোনো সমস্যা হচ্ছে না৷ ভিজে জমিতে সেজেস ঘাস ভালই বেড়ে ওঠে৷



২০২২ সালে এই পরীক্ষার কাজ শেষ হবে৷ চাষবাস, প্রকৃতি এবং জলবায়ু সংরক্ষণের ক্ষেত্রে ‘মুর-ইউজ’ প্রকল্প সাফল্য বয়ে আনতে পারে৷ জার্মানির বাভেরিয়া রাজ্যের সব মুর বা জলাভূমিতে আবার পানি ভরিয়ে দিলে জলবায়ুর জন্য ক্ষতিকর গ্যাসের নির্গমন পাঁচ শতাংশ কমানো যাবে৷

“Green Page” কে সহযোগিতার আহ্বান

সম্পর্কিত পোস্ট

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত