26 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
দুপুর ১:৩৬ | ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
পবিত্র কোরআনের আলোকে প্রাকৃতিক-পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার দিক নির্দেশনা
জীবনধারা

পবিত্র কোরআনের আলোকে প্রাকৃতিক-পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার দিক নির্দেশনা

মহান আল্লাহর সৃষ্টি বৃক্ষ রাজি যে কত বড় নিয়ামত, পবিত্র কোরআনে একাধিক আয়াতে তা প্রমাণিত।আল্লাহ তায়ালা প্রাকৃতিক পরিবেশকে মানুষের জন্য সুস্থ, সুন্দর ও স্বাভাবিক এবং ভারসাম্যপূর্ণ করে সৃষ্টি করেছেন।

পবিত্র কোরআনে পৃথিবীর মানুষকে প্রাকৃতিক-পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার দিক নির্দেশনা দিয়ে ঘোষনা করেছেন, ‘তিনিই আল্লাহ, যিনি বায়ু প্রেরণ করেন। অতঃপর তা (বায়ু) মেঘমালাকে সঞ্চালিত করে। অতঃপর তিনি (আল্লাহ) মেঘমালাকে যেভাবে ইচ্ছা আকাশে ছড়িয়ে দেন এবং তা স্তরে স্তরে রাখেন। এরপর তুমি দেখতে পাও, তার মধ্য থেকে বারিধারা নির্গত হয়। তিনি তার বান্দাদের মধ্যে যাদের ইচ্ছা তা (বৃষ্টি) পৌঁছান। তখন তারা আনন্দিত হয়’। (সুরাঃ রূম, আয়াতঃ ৪৮)।

কোরআনে এরশাদ হচ্ছে, “আমি বিস্তৃত করেছি ভূমিকে ও তাতে স্থাপন করেছি পর্বতমালা এবং তাতে সৃষ্টি করেছি নয়ন প্রীতিকর সর্বপ্রকার উদ্ভিদ। জ্বালানি ও অন্যান্য প্রয়োজনে আমাদেরকে বেশী করে বনায়ন করার নির্দেশ দিয়ে আল্লাহ পাক কোরআনে ঘোষণা করেন-ইরশাদ হচ্ছে- “যিনি (অর্থাৎ আল্লাহ) তোমাদের জন্য সবুজ বৃক্ষ হতে (শক্তি) আগুন উৎপাদন করে দিয়েছেন, সে মতে তোমরা তা হতে (নিজেদের) আগুন জ্বালিয়ে নিতে পার”। (সুরা রাসান, আয়াত-৮০)

আরো ইরশাদ হচ্ছে- তোমরা যে অগ্নি প্রজ্বলিত কর তা লক্ষ করে দেখছো কি? তোমরাই কি অগ্নি উৎপাদন বৃক্ষ সৃষ্টি কর, না আমি? আমি একে করেছি নিদর্শন এবং মরুচারীদের প্রয়োজনীয় বস্ত্র। (সুরা ওয়াকিয়া, আয়াত,৭১/৭৩)।

কোরআনে মানুষের জন্য আল্লাহ পাকের অসংখ্য নিয়ামত প্রসংগে ইরশাদ হচ্ছে-“মানুষ তার খাদ্যের প্রতি লক্ষ করুক। আমিই প্রচুর বারি বর্ষণ করি, অতঃপর আমি ভূমিকে প্রকৃষ্টরূপে (ভালভাবে) বিদারিত করি এবং আমি উৎপন্ন করি শস্য,আংগুর, শাক-সবজি, যায়তুন, খেজুর, বহুবৃক্ষ, বিশিষ্ট উদ্যান, ফল এবং গবাদির খাদ্য, এটা তোমাদের এবং তোমাদের পশুগুলোর ভোগের জন্য। (সুরা আবাসা, আয়াত: ২৪-৩২)।

কোরআনের বিভিন্ন স্থানে বৈচিত্রময় প্রকৃতির কিছু দৃশ্য মানুষের সামনে তুলে ধরা হয়েছে, যাতে এর বিচিত্র প্রকার বর্ণ, গন্ধ, ও সৌন্দর্য দেখে মানুষ পুলকিত ও অভিভূত হয়। যেন সব কিছুর উন্নতি, অগ্রগতি ও সক্রিয়তা দেখে মানুষ আল্লাহর কুদরতের কথা স্মরণ করে। ইরশাদ হচ্ছে, ‘তিনি তোমাদের জন্য তা (পানি) দিয়ে জন্মান শস্য, জাইতুন, খেজুর গাছ, আঙ্গুরসহ বিভিন্ন ধরনের ফল। অবশ্যই এতে চিন্তাশীল সম্প্রদায়ের জন্য রয়েছে নিদর্শন’ (সুরাঃ নাহল, আয়াতঃ ১১ )।

বনের গাছপালা থেকে শুধু কাঠ রাবার, ওষুধ বা ফল-মূলই সংগ্রহ করা হয় না, এগুলো থেকে বিভিন্ন ধরনের সুগন্ধি দ্রব্য এবং তেলও পাওয়া যায়। বৃক্ষের পরিশুদ্ধ তেল দ্বারা প্রজ্জ্বলিত প্রদ্বীপের সাথে আল্লাহ পাক তাঁর নুরের উপমা দিয়েছেন। মানুষ চেষ্টা-গবেষণা করলে বৃক্ষ থেকেও উৎকৃষ্ট ধরণের তেল আহরণ করতে পারে। এই উপমা নি:সন্দেহে সেই তথ্যের প্রতি ইঙ্গিত বহন করে। পবিত্র কুরআন ইরশাদ হচ্ছে “এবং সৃষ্টি করি এক বৃক্ষ যা জন্মায় সিনাই পর্বতে,এতে উৎপন্ন হয় ভোজনকারীদের জন্য তেল ও ব্যঞ্জন”(সুরা মুমিনুল, আয়াত: ২০১)।

রাসুল (সা.) বৃক্ষ রোপণকে সদকায়ে জারিয়ার অন্তর্ভুক্ত করেছেন। হযরত আনাস (রা) হতে বর্ণিত, রাসুল (সা:) বলেছেন, মানুষ, পাখি বা পশু তাদের আহার্য গ্রহণ করে তখন তা তার (রোপণকারী) পক্ষে একটি সদকা (দান) হিসেবে পরিগণিত হয় (বুখারী-মুসলিম )।

বন ও বণ্য পশু-পাখি আল্লাহ পাকের দান ও প্রকৃতির শোভাবর্ধক। তাই রাসুলুল্লাহ (সা.) এগুলোর সংরক্ষণের উপরও বিশেষভাবে গুরুত্ব আরোপ করেছেন। তিনি মক্কা মোর্কারমা ও মদীনা মনোয়ারার একটি বিশেষ এলাকাকে সংরক্ষিত এলাকা বলে ঘোষণা করেছিলেন। ঐসব এলাকায় গাছপালা কাটা এবং সেখানে বন্য পশু-পাখি শিকার করা আজও নিষিদ্ধ।

মুসলিম বিজয়ীরা যে দেশে গিয়েছেন সে দেশকে গাছপালা দ্বারা সবুজ করে তোলার চেষ্টা করেছেন। প্রধানত: কোরআন ও হাদীস শরীফ থেকেই তাঁরা এ কাজের অনুপ্রেরণা লাভ করেছিলেন। মুসলিম ইতিহাসে এর যথেষ্ট নজীর রয়েছে। কৃষির উন্নয়ন ও সংরক্ষণের প্রতি মুসলিম খলিফাগণ সব সময় সজাগ ও সচেষ্ট ছিলেন।

একদা এক ব্যক্তি হযরত ওমর (রাঃ) এর নিকট অভিযোগ করেন যে,তার (সিরিয়ায়) একটি শস্যক্ষেত্র ছিল মুসলিম সৈন্যরা যাওয়ার সময় সেটাকে নষ্ট করে দিয়েছে। হযরত ওমর (রাঃ) অভিযোগ শুনে ঐ ব্যক্তিকে তার ক্ষতিপূরণস্বরূপ বায়তুল মাল থেকে দশ হাজার দিরহাম দান করেন (কিতাবুল খেয়াজ)।খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান ও চিকিৎসাসহ যাপিত জীবনের সব কিছুই গাছকে ঘিরে ও গাছকে নিয়ে।

মহান আল্লাহর সৃষ্টি বৃক্ষ রাজি যে কত বড় নিয়ামত, পবিত্র কোরআনে একাধিক আয়াতে তা প্রমাণিত। এ প্রসঙ্গে ইরশাদ হচ্ছে “তারা কি লক্ষ করেনা, আমি ঊষর ভূমির ওপর পানি প্রবাহিত করে তার সাহায্যে উদগত করি শস্য, যা থেকে তাদের গবাদি পশু এবং তারা নিজেরা আহার গ্রহণ করে’। সূরাঃ সেজদা, আয়াত, ২৭)।

হাদীসে এসেছে ‘যে ব্যক্তি কোন বৃক্ষরোপন করে, আল্লাহ তায়ালা এর বিনিময়ে তাকে এই বৃক্ষের ফলের সমপরিমাণ প্রতিদান দান করবেন। (মুসনাদে আহমদ)।

“Green Page” কে সহযোগিতার আহ্বান

সম্পর্কিত পোস্ট

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত