24 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
রাত ১:৪৭ | ৫ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
পরিবেশ দূষণ

দূষণের কবলে ৯৭ ভাগ পৌরসভা

বুয়েট আইটিএনের নেতৃত্বে পরিচালিত জরিপ : ৩ ভাগ পৌরসভায় আছে পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনা

দেশের ৩২৯টি পৌরসভার মধ্যে (সর্বশেষ ঘোষিত পৌরসভা সিলেটের বিশ্বনাথ বাদে) পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনা সেবা চালু আছে মাত্র ১০টিতে, যা মোট পৌরসভার মাত্র ৩ ভাগ। বাকি ৯৭ ভাগ পৌরসভার পয়ঃবর্জ্য ফেলা হচ্ছে খাল, বিল ও নদীতে। এতে দূষিত হচ্ছে মাটি ও পানি। পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনা না থাকা ৩১৯টি পৌরসভার মধ্যে ১৬৬টিই প্রথম শ্রেণির। ১৮৪টি পৌরসভার পয়ঃবর্জ্য পরিশোধনাগার নির্মাণের জন্য নিজস্ব কোনো জমিই নেই। স্থানীয় সরকার বিভাগের সহায়তায় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) আইটিএনের নেতৃত্বে পরিচালিত জরিপে এমন চিত্র উঠে এসেছে। এতে দেখা গেছে, সারা দেশের মধ্যে পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনা সেবা চালু আছে শুধু শেরপুর, নীলফামারী, লক্ষ্মীপুর, যশোর, কুষ্টিয়া, ফরিদপুর, চৌমুহনী, ঝিনাইদহ, সখীপুর ও সাতক্ষীরা পৌরসভায়। এ ১০টি পৌরসভা প্রথম শ্রেণির হলেও অপর ১৬৬টি প্রথম শ্রেণির পৌরসভায় পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনা নেই। বাকি ১৫৩টি পৌরসভার মধ্যে অধিকাংশ দ্বিতীয় শ্রেণির, হাতে গোনা কয়েকটি তৃতীয় শ্রেণির। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোর (সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, পল্লী অঞ্চল) পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য আলাদা আলাদা কাঠামো রয়েছে। পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনাসহ বিভিন্ন নাগরিক সেবা নিশ্চিত করার দায়িত্ব এসব প্রতিষ্ঠানের। তবে বরাদ্দ ঘাটতি, জনপ্রতিনিধিদের উদাসীনতা, দুর্নীতি, প্রস্তুতি ছাড়াই অপরিকল্পিতভাবে নতুন নতুন পৌরসভা গঠনের কারণে নামেই এগুলো স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান হচ্ছে। জনগণ উপকৃত হচ্ছে না। এ ছাড়া অধিকাংশ জনপ্রতিনিধি নির্বাচনের আগে নানা প্রতিশ্রুতি দিলেও পরবর্তীতে তারা ব্যক্তিগত উন্নয়নে ব্যস্ত হয়ে পড়ায় নাগরিক সেবাগুলো অধরা থেকে যাচ্ছে। জবাবদিহিতার ব্যবস্থা নেই। স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ ড. তোফায়েল আহমেদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, একের পর এক পৌরসভা গঠন করা হলেও অধিকাংশেরই সক্ষমতার ঘাটতি আছে। পর্যাপ্ত বাজেট নেই। পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য গাড়ি নেই। বর্জ্য ডাম্পিং ইয়ার্ড নেই। সুয়ারেজ লাইন নেই। জনপ্রতিনিধিদেরও এসব নিয়ে কোনো চিন্তা নেই। নগর হওয়ার জন্য যেসব উপকরণ প্রয়োজন, সেগুলো হলেই তাকে পৌরসভা ঘোষণা করতে হয়। এখানে নতুন নতুন পৌরসভা করতে সরকার প্রচুর টাকা খরচ করছে, কিন্তু এগুলো বাস্তবে পৌরসভা হচ্ছে না। শুধু শুধু খরচ বাড়ছে। অর্থের অপচয় হচ্ছে। এ ব্যাপারে পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগের সঙ্গে কাজ করা বুয়েটের আইটিএন (ইন্টারন্যাশনাল ট্রেনিং নেটওয়ার্ক) এর পরিচালক অধ্যাপক ড. তানভীর আহমেদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের সহায়তায় জরিপে আমরা ৩২৯টি পৌরসভার মধ্যে ১০টিতে পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনা সেবা চালু থাকতে দেখেছি। তবে সরকার দেশের সব পৌরসভাসহ সারা দেশের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা তৈরি করছে। পৌরসভার কর্মপরিকল্পনা তৈরি হয়ে গেছে। ২০৩০ সালের মধ্যে পর্যায়ক্রমে সব পৌরসভায় নিরাপদ স্যানিটেশন সেবা নিশ্চিত করতে প্রাতিষ্ঠানিক ভূমিকা ও দায়িত্বগুলো কর্মপরিকল্পনায় তুলে ধরা হয়েছে।

ইতিমধ্যে এটা নিয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগ কাজ শুরু করেছে। ১১৫টি পৌরসভায় পয়ঃবর্জ্য পরিশোধনাগার তৈরির জন্য জমির নিশ্চয়তা পাওয়া গেছে। পরিকল্পনা অনুযায়ী এগুলোয় ২০২৪ সালের মধ্যে সরকারি বা উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা/ব্যাংকের সহায়তায় পয়ঃবর্জ্য ব্যবস্থাপনা সেবা বাস্তবায়ন করা হবে। এ ছাড়া ২৬টি পৌরসভার পয়ঃবর্জ্য পরিশোধনাগার তৈরির জন্য নিজস্ব জমি আছে, ১৮৪টি পৌরসভার জমি নেই। জমি অধিগ্রহণের মাধ্যমে বাকিগুলোতেও পর্যায়ক্রমে নিরাপদ স্যানিটেশন সেবা নিশ্চিত করা হবে। সূত্র: বিডি-প্রতিদিন

“Green Page” কে সহযোগিতার আহ্বান

সম্পর্কিত পোস্ট

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত