28 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
সকাল ৮:১০ | ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
ঢাকাসহ পার্শ্ববর্তী ৫ জেলায় বন্ধ হওয়া অবৈধ ইটভাটার তালিকা দাখিলের নির্দেশ
পরিবেশ রক্ষা

ঢাকাসহ পার্শ্ববর্তী ৫ জেলায় বন্ধ হওয়া অবৈধ ইটভাটার তালিকা দাখিলের নির্দেশ

ঢাকাসহ পার্শ্ববর্তী ৫ জেলায় বন্ধ হওয়া অবৈধ ইটভাটার তালিকা দাখিলের নির্দেশ

আদালতের নির্দেশনা অনুসারে ঢাকাসহ পার্শ্ববর্তী মুন্সীগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরে বন্ধ করা কিংবা গুঁড়িয়ে দেওয়া অবৈধ ইটভাটার তালিকা প্রতিবেদন আকারে দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে ৫ জেলার জেলা প্রশাসক ও পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালককে এ নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। রবিবার (২২ মে) বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মহি উদ্দিনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।



আদালতে রিটের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী মাইনুল হাসান ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল নাসিম ইসলাম রাজু। এছাড়া পরিবেশ অধিদফতরের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট আমাতুল করিম।

এর আগে বৃহস্পতিবার (১৯ মে) সকালে আদালতে হাজির হয়ে ৫ জেলার জেলা প্রশাসক ও পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালক আদালতকে জানান, হাইকোর্টের আদেশে পরিবেশ দূষণকারী অধিকাংশ অবৈধ ইটভাটা বন্ধ ও ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে আরও কিছু অবৈধ ইটভাটা বন্ধ করে দেওয়ার কাজ চলমান রয়েছে।

এরপর হাইকোর্ট জেলা প্রশাসকদের কাজের প্রশংসা করেন এবং আদালতের আদেশ পুরোপুরি বাস্তবায়নের নির্দেশ দেন। পাশাপাশি জেলা প্রশাসকদের ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি দেন হাইকোর্ট।

এর আগে ঢাকা শহর ও আশেপাশের এলাকায় বায়ু দূষণ বন্ধে মানবাধিকার ও পরিবেশবাদী সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ (এইচআরপিবি) জনস্বার্থে হাইকোর্টে রিট দায়ের করে। এরপর ঢাকার বায়ুদূষণ রোধে কয়েকদফা নির্দেশনা দেন হাইকোর্ট।

ওই রিটের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট কয়েকটি নির্দেশনা দেন। সেগুলো হলো— বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন হওয়ার পরে তাদের মতামত বিবেচনা করে বায়ুদূষণ বন্ধ করতে ঢাকা শহরে পরিবহন গাড়িতে, নির্মাণাধীন এলাকায় মাটি/বালি/বর্জ্য ঢেকে রাখা, সিটি করপোরেশন কর্তৃক রাস্তায় পানি ছিটানো, রাস্তা খোড়াখুড়ি কাজে টেন্ডারের শর্ত পালন নিশ্চিত করা, কালো ধুয়াবাহী যানবাহন জব্দ করা ও অবৈধ ইটভাটাগুলো বন্ধ করা।



তবে সেসব নির্দেশনা বাস্তবায়ন না হওয়ায় গত ৩০ জানুয়ারি হাইকোর্টে একটি সম্পূরক আবেদন দাখিল করা হয়। ওই আবেদনের সঙ্গে ঢাকা শহরের বর্তমান দূষণের মাত্রা সর্বোচ্চ পর্যায়ের অবস্থান ও অবৈধ ইটভাটা পরিচালনা সম্পর্কে মিডিয়ার সংবাদ সংযুক্ত করে ৪ দফা নির্দেশনা চাওয়া হয়।

সেই আবেদনের শুনানি নিয়ে ঢাকার বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণে আদালতের দেওয়া একাধিক নির্দেশনা বাস্তবায়নে পদক্ষেপ না থাকায় ৫ জেলার জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) ভার্চুয়ালি সংযুক্ত থাকার নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।

পাশাপাশি জেলাগুলোর অবৈধ ইটভাটার তালিকা দাখিলেরও নির্দেশ দিয়েছিলেন আদালত। সে আদেশের ধারাবাহিকতায় ডিসি ও তাদের প্রতিনিধিরা আদালতে যুক্ত হয়ে তাদের বক্তব্য পেশ করেছিলেন।

এরপর আদালত তার নির্দেশনায় ওই পাঁচ জেলায় বায়ুদূষণ রোধে অবৈধ ইটভাটা বন্ধের নির্দেশ দেন। তবে সেসব নির্দেশনা পালনের ব্যর্থতায় তাদের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ তোলেন রিটকারী আইনজীবী। সেই আবেদনের ধারাবাহিকতায় ব্যাখ্যা জানতে জেলার জেলা প্রশাসক ও পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালককে সশরীরে তলব করেছিলেন হাইকোর্ট।

“Green Page” কে সহযোগিতার আহ্বান

সম্পর্কিত পোস্ট

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত