29 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
সন্ধ্যা ৭:২৭ | ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
জলবায়ু সংকট এখন গ্রহের প্রতিদিনের আবহাওয়াতেই সনাক্তযোগ্য
পরিবেশ ও জলবায়ু সাদিয়া নূর পর্সিয়া

জলবায়ু সংকট এখন গ্রহের প্রতিদিনের আবহাওয়াতেই সনাক্তযোগ্য

জলবায়ু সংকট এখন গ্রহের প্রতিদিনের আবহাওয়াতেই সনাক্তযোগ্য

সাদিয়া নূর পর্সিয়া(৭ম সেমিষ্টার স্টুডেন্ট,
ইংরেজী বিভাগ, আইইউবি, ঢাকা)

আমরা মানুষেরা পৃথিবীতে যে জলবায়ু পরিবর্তন ঘটিয়েছি তা এখন এত গভীরভাবে জেঁকে বসেছে যে, আমাদের প্রতিদিনের আবহাওয়ায় তা প্রকাশ পাচ্ছে।

সুইজারল্যান্ড এবং নরওয়ের গবেষকরা এখন দাবি করছেন যে ২০১২ সাল থেকে বৈশ্বিক বিবরণীতে প্রতিটি দিনের আবহাওয়াতেই জলবায়ু পরিবর্তনের “ছাপ” সনাক্ত করেছেন।

বিজ্ঞানীরা বছর বছর ধরে জলবায়ু এবং আবহাওয়ার মধ্যে পার্থক্য খুঁজে বেড়াচ্ছেন। এবং দুটি ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত হলেও, সাধারণত স্বতন্ত্র হিসেবে বিবেচিত হয়। আবহাওয়া স্বল্পমেয়াদী পরিস্থিতি প্রকাশ করে এবং জলবায়ু প্রকাশ করে দীর্ঘ প্রবণতার।

সুইস জলবায়ু বিজ্ঞানী রেটো নটি ওয়াশিংটন পোস্টকে বলেছেন, তিনি নিশ্চিত নন যে পার্থক্যটি এখন আর স্বতন্ত্র আছে কিনা।

তিনি দাবি করেন "আপনারা যদি পুরো বিশ্বের দিকে লক্ষ্য করেন তবে দেখতে পাবেন আবহাওয়া হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তন।"

এর মানে হচ্ছে স্থানীয় স্তরে আবহাওয়া জলবায়ু পরিবর্তন সংকেত প্রকাশ করে না। তবে আপনি যদি এ অঞ্চলগুলিকে বৈশ্বিক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখেন তবে তাপমাত্রা এবং আর্দ্রতার পরিবর্তন মানবপ্রকৃতির চিহ্ন প্রদর্শন করে এবং প্রাকৃতিকভাবে যা ঘটবে সেগুলি থেকে তারা স্পষ্টত পৃথকযোগ্য।

সুতরাং, বিশ্বের কিছু অঞ্চল এখনও খুবই শীতল হয়ে যেতে পারে – এমনকি তারা তাপমাত্রার রেকর্ডও ভেঙে ফেলতে পারে – তবে এটি যদি একই সাথে বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের গড়ের তুলনায় উষ্ণতর হয়, তবে এটি সামগ্রিক জলবায়ু প্রবণতায় প্রভাব ফেলবে না।

জলবায়ু মডেল এবং তথ্যের সাথে যন্ত্রপাতির জ্ঞান ব্যবহার করেন সুইস জলবায়ুর অধ্যাপক নটি I তার সহকর্মীরা ১৯৫১ থেকে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত দৈনিক গড় আবহাওয়ার মান নির্ণয় করে যার সাথে কোনোক্রমে ২০০৯ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত মানের সাদৃশ্য পাওয়া যায়।

জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় দেশের স্বার্থে কার্বন নিঃসরণ বন্ধ করতে হবে

বার্ষিক তথ্য পর্যালোচনা করে, লেখকরা লক্ষ্য করেছেন যে বৈশ্বিক আবহাওয়ায় জলবায়ু পরিবর্তনের ছাপটি ১৯৯৯ সালের অবস্থায় ফিরে গেছে। এবং ২০১২ সাল থেকে এটি প্রতিদিনই দেখা যাচ্ছে। এবং জলবায়ু পরিবর্তনের সংকেত এখন এতই বেশি যে এমনকি বৈশ্বিক দৈনিক আবহাওয়ার পরিবর্তনশীলতার চেয়েও বেশি।
“বিশ্বের স্তরের আবহাওয়া জলবায়ু সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বহন করে,” অধ্যাপক নটি ব্যাখ্যা করেন। “উদাহরণস্বরূপ, এ তথ্যগুলো আরও অধ্যয়নের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে যা আঞ্চলিক শীতের মৌসুম মতো চরম আবহাওয়ার ঘটনাগুলির সম্ভাবনার পরিবর্তনের পরিমাণ নির্ধারণ করে।”

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে, বিজ্ঞানীরা বৈশ্বিক উষ্ণায়ন এবং আবহাওয়া পরিবর্তনের ধরণের মধ্যে জোরালো সংযোগ আবিষ্কার করেছেন এবং জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য যেমন যেকোন একটি দুর্যোগকে দোষ দেওয়া মুশকিল, ঠিক তেমনই তাপপ্রবাহ, খরা এবং ঝড়ের সামগ্রিক ধরনও একই।

নতুন অনুসন্ধানগুলি ধারণা দিয়েছে যে জলবায়ু পরিবর্তন আমরা যতটা না চিন্তা করেছি তার চেয়ে বেশি গভীরভাবে জেঁকে বসেছে, তবে আমরা যদি স্বল্প-মেয়াদী আবহাওয়ার ঘটনাগুলির সাথে দীর্ঘমেয়াদী প্রবণতাগুলি কীভাবে সংযুক্ত করা যায় তা বের করতে পারি, এটি আমাদের সবচেয়ে খারাপের জন্য প্রস্তুত হতে সহায়তা করতে পারে।

“এটি বৈশ্বিক উষ্ণায়নের পরিপ্রেক্ষিতে আঞ্চলিক আবহাওয়া ঘটনাগুলির যোগাযোগের নতুন সুযোগ বৃদ্ধি করে,” নটি বলেছেন। “প্রকৃতির জলবায়ু পরিবর্তন” এ এই গবেষণাটি প্রকাশিত হয়েছিল।

Source : Science Alert

সম্পর্কিত পোস্ট

একটি মন্তব্য দিন

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত