31 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
সকাল ১১:৩১ | ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
অতল গহ্বরের কিনারে আমেরিকান পুঁজিবাদ
আন্তর্জাতিক পরিবেশ রহমান মাহফুজ সাদিয়া নূর পর্সিয়া

অতল গহ্বরের কিনারে আমেরিকান পুঁজিবাদ

অতল গহ্বরের কিনারে আমেরিকান পুঁজিবাদ

(In defence of Marxism প্রত্রিকায় প্রকাশিত প্রবন্ধের বাংলা রূপ)
বাংলারূপ: রহমান মাহফুজ এবং সাদিয়া নূর পর্সিয়া

কোভিড-১৯ মহামারী আমেরিকান সম্প্রদায়কে আতঙ্ক ও হতাশায় নিমজ্জিত করেছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পঞ্চাশটি রাজ্য এবং ওয়াশিংটন ডিসি এখন নভেল করোনা ভাইরাসের আক্রান্তে জর্জরিত। ২০ এপ্রিল এ আক্রান্তের সংখ্যা ৮ লক্ষ এবং মৃত্যুর সংখ্যা ৪৫.০০০ ছাড়িয়ে গেছে।

জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তারা আশঙ্কা করছে যে, যুক্তরাষ্ট্র একটি সংকট পর্যায়ে পৌঁছে গেছে এবং খুব দ্রুত হাসপাতালগুলি রোগীতে পরিপূর্ণ হবে এবং পুরো দেশটি হয়ে পড়েছে তালাবদ্ধ। আটলান্টা এমরি বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল অফ মেডিসিনের অধ্যাপক ডা: কার্লোস ডেল রিও সম্প্রতি সিএনএনকে বলেন:

“আমি ভীষণ চিন্তিত সবচেয়ে খারাপতম সম্ভাব্য সমন্বয় নিয়ে: অনেক বেশি রোগী; অনেক কম ডাক্তার, নার্স … তাদের যত্ন নেয়ার জন্য।”

বিষয়গুলি দ্রুত জটিল হচ্ছে, যেহেতু অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক এবং জনস্বাস্থ্য সংকটের একটি ঝড় শ্রমজীবী শ্রেণি-আমেরিকান পুঁজিবাদীদের আঘাত করেছে। মন্দা এবং স্টক মার্কেটের অর্থনীতি ডুবে যাওয়ার সাথে সাথে পরিস্থিতিটির মাধ্যাকর্ষণ – এবং ডোনাল্ড ট্রাম্পের পুনরায় নির্বাচনে জয়ী না হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

বিশ্বব্যাপী প্রাদুর্ভাবকে “ধাপ্পাবাজি” আখ্যা দেওয়ার মাত্র কয়েক সপ্তাহ পরে এটিকে ”ইহা গুরুত্বপূর্ণ বিবেচ্য ছিল” আখ্যা দিয়ে ট্রাম্প নিজের কথা গিলতে বাধ্য হয় এবং স্টাফোর্ড আইনের আওতায় একটি জাতীয় জরুরী অবস্থা ঘোষণা করে।

১৩ ই মার্চ, ট্রাম্প প্রশাসন একটি বাস্তবতা বিহীন সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প ‘কর্পোরেট’ মুল বিষয়টি আড়ালের মাধ্যমে আড়ম্বর প্রদর্শণ করে ট্রাম্প উচ্চারণ করে “কোনটি, কোনটি কর্পোরেট আমেরিকা” এবং সংকট মোকাবেলায় “ঐতিহাসিক সরকারী-বেসরকারি অংশীদারিত্ব” ঘোষণা করেন। বগিম্যান ( পুরাণিক প্রাণী যা বড়দের দ্বারা শিশুদের ভাল আচরণে ভয দেখানোর জন্য ইমাজিং পার্কে ব্যবহৃত হয়) এর ন্যয় এক বিদেশী ভাইরাসের ভয়ে নিজকে একটি বন্ধ খোলের ভিতর আবদ্ধ রেখে এবং সাধারণ অবস্থার চেয়েও আরও বেশি বিচ্ছিন্ন হয়ে উক্ত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হয়েছিলেন। তার হাতের মন্দভাবে নেয়া এলোমেলো চিরকূটগুলো তালগোল পাকিয়ে এনে, তিনি বিড়বিড় করে জাতির কাছে তার “আশা এবং অনুপ্রেরণার” বার্তাটি অন্যদেরকে দোষারোপ করে উদ্ধিত করলেন যে,

“আমরা এই বিষয়ে খুব কঠোর পরিশ্রম করে চলেছি। আমরা অসাধারণ অগ্রগতি অর্জন করেছি। যখন আপনি বিশ্বের অন্যান্য দেশের সাথে আমরা যা করেছি তার সাথে তুলনা করবেন, দেখবেন এটি বেশ অবিশ্বাস্য। প্রারম্ভিকবাবে ইহার গুরুত্ব দেওযা এবং সীমানা বন্ধ করে দেয়াটিতে অনেক কিছুই বহন করে। এবং, আপনি কি জানেন যে ইউরোপকে এখন এই ভাইরাসের হটস্পট বলা হচ্ছে এবং আমরা কিছুক্ষণ আগে ইউরোপের সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছি। সুতরাং এটি আমাদের ভাগ্য বা প্রতিভা বা ভাগ্যের - আপনি যেভাবে ইচ্ছে এটিকে বলতে পারেন। তবে অত্যন্ত সম্মিলিত পদক্ষেপ এবং অংশিদারিত্ব উৎসর্গতা এবং জাতীয় সংকল্পের মাধ্যমে আমরা ভাইরাসের হুমকিকে কাটিয়ে উঠব।”

যৌথ ব্যর্থতা

তারপরে, ১৬মার্চ, ট্রাম্প দ্বিগুণ প্রতিক্রিয়ায় এবং জোর দিয়ে বললেন, “আমাদের একটি সমস্যা রয়েছে যা, এক মাস আগে, কেউই ভাবেনি”- ইহা একটি নির্লজ্জ মিথ্যা কথা। সমালোচকরা সঠিকভাবে দেখিয়ে দেয় যে, ট্রাম্প মহামারী মোকাবেলার প্রস্তুতিতে ২০১৮ সালে হোয়াইট হাউসকে ধ্বংস করে দিয়েছিল। তবে কয়েক দশক ধরেই ডেমোক্রিটিক পার্টি এবং রিপাবলিকান পার্টি উভয় প্রশাসনের অধীনেই জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থায় সুযেগ-সুবিধা হ্রাস পেয়ে আসছে।

USA Coronavirus chart Image Pixabay

২০১২ সালে ওবামা একটি বিল স্বাক্ষর করেছেন, যার মাধ্যমে রোগ প্রতিরোধ ও জনস্বাস্থ্য তহবিল হতে ৬ বিলিয়ন ডলারের বেশি আন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়েছিল, যার ফলে এই ধরণের সঙ্কট মোকাবেলায় রাজ্য ও স্থানীয় স্বাস্থ্যসেবা সংস্থাগুলিকে প্রচুর পরিমাণে তহবিল ঘাটতিতে ফেলে দেয়। ধনীদের জন্য ট্রাম্পের ২০১৭ সালে ট্যাক্স কমানোর ফলে এ খাত হতে আরও ৭৫০ মিলিয়ন ডলার তহবিল ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে। ইহা ছাড়াও আমেরিকার বেসরকারী স্বাস্থ্যসেবার কাঠামোগুলো কর্তৃক সরকারী হাসপাতালগুলোকে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এবং যেখানেই সম্ভব হয়েছে নগদে স্বাস্ত্যসেবা কার্যক্রমের প্রচলন করা হচ্ছে।



ম্যানহাটানে সেন্ট ভিনসেন্ট নামে একটি বড় হাসপাতাল ছিল, এই মহামূল্যমান সম্পদটি ব্যয়বহুল সরকারী -বেসরকারী যৌথ নিয়ন্ত্রণে রূপান্তরিত হয়েছে এবং এমন ভাবে হাসপাতালের বিছানা কমানো হয়েছিল যে সেগুলোর এখন বড় প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। সরকারেরে এ সকল পদক্ষেপগুলি শুধু “কার্যকারিতা বিহীন ( headless chickens)” কর্মকান্ড হিসাবে ১৯১৮ সালে বিশ্বব্যাপি সংগঠিত মহামারী স্প্যানিশ ইনফ্লয়েঞ্জার সংক্রমণের পর স্বাস্থ্যখাতের এ নাজুক অবস্থা মঞ্চস্ত হওয়ার মঞ্চ তৈরি করেছে—যা তখন বিশ্ব জনসংখ্যার ২৭% মানুষকে সংক্রামিত করেছিল এবং বিশ্বব্যাপী আনুমানিক ৫০ মিলিয়ন মানুষের প্রাণহানি ঘটিয়েছিল।

ঐ সংবাদ সম্মেলণে উপস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের অ্যালার্জিক ও সংক্রামক রোগ ইনস্টিটিউটের পরিচালক অ্যান্টনি ফৌসি, যার আগ্রহ জনস্বাস্থ্য রক্ষায়, রাষ্ট্রপতিকে কুশি করা নয়, তার খোলামেলা সততার সাথে ট্রাম্পের মুখ-রক্ষার কাঁচুমাচু মূখের শব্দগুলি বিভৎসম দেখিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র বর্তমানে COVID 19 নিয়ন্ত্রণে যে প্রদ্ধতিতে অগ্রসর হচ্ছে, তা জনগন এখন যা চাচ্ছে তার পক্ষে নয়। সত্যিই … এটি ব্যর্থ। এটি স্বীকার করার বিকল্প নাই। অন্য দেশে এই ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে যেভাবে অগ্রসর হচ্ছে এবং পরীক্ষিত ভাবে ভাল ফল পাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র সে পথে হাটছে না। যুক্তরাষ্ট্রের যা করা উচিৎ, তার জন্য যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তুত নয়।

এখনও তুলনামূলকভাবে চাহিদার তুলনায় কম সংখ্যক টেস্ট রিপোর্ট করা যাচ্ছে, এর কারণ টেস্টিং কিটের অভাব। এরই মধ্যে লক্ষ লক্ষ – সম্ভবত মিলিয়নস মিলিয়নন লোক পরস্পরের সংস্পর্শে এসেছে এবং সম্ভবত সংক্রমিত হয়েছে। যদি সিয়াটলের ডাঃ হেলেন চুর মতো গবেষকরা প্রকাশ্যে অবাধ্যতা না করতেন, যিনি অনুমোদন ছাড়াই COVID-19 এর জন্য পরীক্ষা শুরু করেছিলেন, আমেরিকানদের মহামারীটির প্রকৃত রূপ থেকে আরও অন্ধকারে থাকতে হত।

ডাঃ হেলেন চুরের পরীক্ষার ফলাফল দীর্ঘকাল বিলম্বিত হওয়ার পর অবশেষে যখন আসতে শুরু করল তখন তিনি তা ভয়াবহতার সাথে বুঝতে পেরেছিলেন: “অবশ্যই এই ভাইরাসটি অনেক আগেই যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেছিল এবং এটি তার অনেক আগেই সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে।”

সংরক্ষণবাদীদের উভয় সংকটের দ্বিধাটি হল: ভাইরাসটির জন্য অর্থনীতিটিকে আরও ক্ষতিগ্রস্ত করা হবে কিনা

– নাকি এই আশা করা যে সবকিছু জাদুকরীভাবে ঠিক হয়ে যাবে। লোক ও পণ্য চলাচলে সীমাবদ্ধতা এড়াতে তারা যথাসম্ভব চেষ্টা করেছিল, কারণ এর অর্থ বাণিজ্য হ্রাস পাবে। আপনি যদি বাজার বন্ধ করে দেন, সর্বোপরি, আমেরিকান পুঁজিবাদ কীভাবে কাজ করতে পারে? মূল্যবান সময়টি হারিয়ে গিয়েছে উদাসীনতা, অস্বীকার, আমলাতান্ত্রিক লাল ফিতার দৌরাত্বে এবং পুরানো ধাঁচের অর্থলিপ্সার কাছে, এ সময়ে ভাইরাসটি ধীরে ধীরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে করে ফেলছে।

বেশ কয়েকটি সংকটপূর্ণ দিনের জন্য, ক্ষমতাসীন শ্রেণি পক্ষাঘাতগ্রস্থ অবস্থায় ছিল, ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ব্যবস্থা নিতে ভয় পেয়েছিল, তবে তীব্র সামাজিক অস্থিতিশীলতা নিয়েও তারা আতঙ্কিত হয়েছিল যা সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে বিলম্বের ফলে ঘটতে যাচ্ছিল। ট্রাম্পের অসংলগ্ন সংবাদ সম্মেলনের ঠিক কয়েকদিন পরে, ক্যালিফোর্নিয়ার সমূদ্র তীরবর্তী এলাকায় অবস্থিত একটি “আশ্রয়স্থল” লক ডাউন করা হয়েছিল, এবং তার পরবর্তীতে নিউইয়র্ক সিটি।

পুরো নিউইয়র্ক শহর জুড়ে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার পরও, মেয়র বিল দে ব্লাসিও স্কুল ব্যবস্থা বন্ধ করতে অস্বীকার করেছিলেন এবং প্রতিদিন তাকে তার সুরক্ষা দলটি ম্যানহাটনের পূর্ব দিক থেকে ব্রকলিনে তাঁর জিম-এ দিয়ে আসত, যেন এটি সাধারণ বিষয় ছিল, অর্থাৎ ইহা তেমন কিছু না-কার্যকলাপের মতো। বেশ কয়েকজন শীর্ষ সহযোগী পদত্যাগ করার হুমকি দেওয়ার পরে এবং শিক্ষকরা ছুটির জন্য আন্দোলন সংগঠিত করা শুরু করলে, তিনি অবশেষে ক্রমবর্ধমান জনসাধারণের চাপের কাছে পরাজয় স্বীকার করেছেন। যতক্ষণে তিনি জমায়েতের তীব্রতা সীমাবদ্ধ করে এবং শহরের স্কুল, রেস্তোঁরা, থিয়েটার এবং আরও অনেক কিছু বন্ধ করতে বাধ্য হন, ততক্ষণে খুব দেরি হয়ে গেছে।

অতপর: শহরটির বিস্তীর্ণ অঞ্চলগুলি একটি ভূত-শহর ( ghost town) এর সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ পরিনত হয়েছে এবং এর বাসিন্দাদের ধরেই নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে, সমগ্র জনসংখ্যার একটি অংশের মৃত্যুর হারসহ একটি ভাইরাসের সংক্রমণ হয়েছে, যা হৃদরোগ এবং ক্যান্সারের সংক্রমণকে ছাড়িয়ে যেতে পারে। যেমনটি নিউইয়র্ক টাইমস বলেছে: “নিউ ইয়র্ক সিটিতে জীবনযাত্রা, ৮.৬ মিলিয়ন লোকের সমষ্টি এবং এই দেশের জন্য একটি অর্থনৈতিক ইঞ্জিন, বেদনাদায়কভাবে থমকে দাঁড়িয়েছে।”

অর্থনীতিতে বিশৃঙ্খলা

শেয়ারবাজারে ট্রিলিয়ন ট্রিলিয়ন ডলারের ক্ষতি হয়ে যাওয়ার ফলে আশঙ্কা ভয়ে পরিণত হয় এবং তারপর সর্বাত্মকভাবে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। লেবার দলের প্রাক্তন সেক্রেটারি রবার্ট রেইচ – যিনি আমেরিকান পুঁজিবাদের পক্ষে উদারপন্থী মতবাদবিদের প্রিয়তম – তিনি যখন উল্লেখ করেছিলেন যে “আমাদের অর্থনীতি বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।” যদিও তিনি “সমস্ত আমেরিকানদের” পক্ষে কথা বলতে চেয়েছিলেন, তিনি “আমাদের” দ্বারা যা বোঝাতে চেয়েছিলেন তা ছিল “বুর্জোয়া শ্রেণি বা সংরক্ষণ শ্রেণী”।

এ যেন অভূতপূর্ব পদক্ষেপ! ফেডারেল রিজার্ভ, সুদের হারকে শূন্যে নামিয়েছে। আরও বলেছে যে, তারা সবকিছুকে সামলানোর জন্য সরকারী এবং বন্ধক সংক্রান্ত চুক্তির কমপক্ষে ৭০০ বিলিয়ন ডলার বন্ড ক্রয় করবে। এতে শেয়ার বাজারগুলির পতন রোধ হয়। শেয়ার বাজারের ভিআইএক্স সূচক ২০০৮ সালের ২৪ অক্টোবর উত্তলোনের রেকর্ডটি ছাড়িয়ে ১৬ মার্চ ২০২০ এ ৪৩% থেকে বেড়ে ৮৬.৬৯% এ গিয়ে দাঁড়ায়।

অনুপ্রেরণামূলক আত্মবিশ্বাসের বাইরে, নাটকীয় সুদের হারের হ্রাস কেবলমাত্র ইঙ্গিত দেয় যে, ফেডারেল রির্জাভ নিজেই আতঙ্কিত এবং এই বিষয়গুলি যা তারা হতে দিচ্ছে তার চেয়েও অনেক খারাপ। সস্তা অর্থ দিয়ে অর্থনীতিকে বণ্যায় ভাসিয়ে দিয়ে ব্যয়কে উদ্বুদ্ধ করা যা না- যখন ধনী ব্যক্তিরা ইতোমধ্যে ট্রিলিয়ন ডলার নিয়ে বসে আছে। এখন লক্ষ লক্ষ লোক ঘরে বসে আছে, জনসাধারণকে ছাঁটাই করা শুরু হয়ে গিয়েছে, এবং উচ্ছেদের এবং জোর করে বন্ধ করার একটি ধ্বস অবশ্যই এখন নিশ্চিত। এখন মার্কিন অর্থনীতি ইতিহাসের সবচেয়ে খারাপ ত্রৈমাসিক সংকোচনের জন্য উদ্বিগ্ন।

যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারী সেক্রেটারী স্টিভেন মানুচিন সতর্ক করেছেন যে, মহামারীর মহা মন্দা এবং বেকারত্ব ২০ শতাংশে উন্নীত হওয়ার আশঙ্কার চেয়েও মহামারীটির অর্থনৈতিক ধ্বংসাত্বক কর্মকান্ড আরও খারাপ হতে পারে। বিশ্বব্যপি শ্রমিকেদের চাকুরীতে নিয়োগের মাধ্যমে সুবিধাভোগী ফার্ম চ্যালেঞ্জার, গ্রে এবং ক্রিসমাসের মতে, শুধুমাত্র রেস্তোঁরা, বার এবং আতিথেয়তা খাতে প্রায় ৭.৪ মিলিয়ন শ্রমিক তাদের চাকরি হারাতে পারে। এয়ারলাইন, উৎপাদন, খুচরা বিক্রয়, বিনোদন এবং অন্যান্য প্রভাবিত শিল্পগুলিতে এগুলির কী কী প্রভাব পড়বে তা বাদ দিয়েই এ পরিসংখ্যান।

প্রাথমিকভাবে ভাইরাসটির প্রকোপ মোকাবেলায় ৫০ বিলিয়ন ডলার প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পরে অর্থনীতির পুরো পতন রোধে এখন প্রায় ১.৫ ট্রিলিয়ন ডলার প্রস্তাব করা হচ্ছে। তবে এই ক্ষরণ বন্ধ করার জন্য এটি পর্যাপ্ত হবে না। সরকার যদি সবকিছুর সমাধান করার জন্য নির্দিষ্ট আয়ের নীচে প্রতিটি প্রাপ্তবয়স্ককে সরাসরি চেক প্রেরণের প্রস্তাব অনুসরণ করে, তবে এর জন্য কীভাবে অর্থ প্রদান করা হবে? যদি অর্থটি সহজভাবে মুদ্রিত হয়, তবে মুদ্রাস্ফীতি যে ভাবে বৃদ্ধি পাবে তাতে ডলারের মূল্য এবং বিশ্বব্যপি এর প্রভাবকে হ্রাস করবে।

মানুচিন জোর দিয়ে বলেছেন যে, “এখন ঘাটতি নিয়ে চিন্তার সময় নয়।” তবে ক্রমবর্ধমান জাতীয় ঋণের সাথে যুক্ত করার বিষয়টি শূণ্য-সমষ্টি খেলা নয়। এ পর্যন্ত ২৪ ট্রিলিয়ন ডলারের ঋণ গ্রহন – এটি ইতোমধ্যে মার্কিন অর্থনীতির পুরো বার্ষিক উৎপাদনের চেয়েও বেশি। বিদ্যমান ঋণের সুদের প্রদত্ত অর্থ প্রতি বছর প্রায় অর্ধ ট্রিলিয়ন ডলার খেয়ে ফেলে এবং যা ফেডারাল বাজেটের ১০% ।

এই অর্থটি শেষ পর্যন্ত উচ্চ শ্রেণীর কর বা ভবিষ্যতের মিতব্যয়িতার আকারে শ্রমজীবী দ্বারাই ফেরত নেয়া হবে –

বেসরককারী ঋণদাতাদের সুদ পরিশোধের জন্য। যদিও করোণার ফলে সৃষ্ট বেকার জনগোষ্ঠীকে সহায়তা দেওয়ার জন্য এই চেক প্রদান করা হচ্ছে এবং ঋণগুলি “কঠোর পরিশ্রমী আমেরিকান এবং ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের” সহায়তা করার জন্যই প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছে, তবুও আসল উদ্দেশ্য হল ব্যাংক এবং অন্যান্য ঋণদাতাদের তাদের ভাড়া, বন্ধক, ক্রেডিট কার্ড, অটো, শিক্ষা এবং অন্যান্য ঋণ প্রপরিশোধে ব্যয় হবে। অন্য কথায়, এটি জরুরি সার্বজনীন মৌলিক আয়ের ছদ্মবেশে ধনীদের কাছে আরও একটি বিশাল ধাক্কা। এবং চেকগুলির টাকা শেষ হয়ে গেলে কী ঘটবে যদি চাকরিগুলো ফিরে না আসে?

আতঙ্ক-ক্রয়, সংগ্রহ, মূল্যবৃদ্ধি এবং দোকানের খালী তাকগুলি শিরোনামে ভরে উঠেছে –

যেহেতু সাধারণ আমেরিকানরা এখন স্পষ্টতই উন্মাদ হয়ে গেছে, বিশ্বে একটি স্থিতিশীলতা ও স্বাচ্ছন্দ্যের কিছুটা প্রতীকী হয়ে ওঠার জন্য যেন তারা হাতড়াচ্ছে। কৃত্রিম অভাবের জগতে উত্থিত এ সংকটে বেশিরভাগ মানুষ এই মুহুর্তে খুব চাপে পড়েছে , তাদের জীবনের সঞ্চয়গুলো ভেঙ্গে ফেলতে হচ্ছে এবং ভবিষ্যতের ভয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে, যেন নিরর্থক খেলা ( shell game) তাদের নাকের নীচে উন্মুক্ত হচ্ছে, যেহেতু জালিয়াতির অর্থনীতি পুনরায় উৎপাদনের নামে ব্যক্তিগত মালিকানা রক্ষা করতে পূনরায় চালু হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে।

আমেরিকা শীর্ষে থাকার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে

কোভিড-১৯ সংকটেরে আসল কারণ নয়। এটি কেবল আমেরিকান পুঁজিবাদের ভুল কাঠামোটিকে উন্মোচিত করেছে। একটি সুগঠিত কাঠামো তুলনামূলকভাবে আঘাত থেকে অক্ষত থাকতে পারত। কিন্তু এই অতিরিক্ত চাপ সামলানোর জন্য পুঁজিবাদের অক্ষমতা প্রমাণ করে যে এটি মৌলিকভাবে শুধু ক্রটিপূর্ণই নয় এবং মর্যাদাপূর্ণ মানব অস্তিত্বের জন্যও সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়।

ডেমোক্র্যাটরা লক্ষ লক্ষ দুর্ভোগের জন্য আমেরিকান পুঁজিবাদ নয়, ভাইরাসকে দোষারোপ করার ক্ষেত্রে ট্রাম্প এবং তার বন্ধুদের সাথে ঐক্যবদ্ধ। তাদের মতে, “আমেরিকা ইতোমধ্যে দুর্দান্ত!” কিন্তু কয়েক মিলিয়ন শ্রমিকের জন্য, “মার্কিন ইতিহাসের দীর্ঘতম ভরসা” মোটেও পুনরুদ্ধারের মত মনে হয়নি। মহাকাব্যিক অনুপাতের সঙ্কটের সাথে আবারও মুখোমুখি হয়ে পুঁজিপতিরা এবং তাদের রাজনৈতিক প্রতিনিধিরা ইতোমধ্যে শেষ সময়ের আপেক্ষিক স্থিতিশীলতার জন্য আগ্রহী। তবে মহামারীটি ছড়িয়ে পড়ার আগে মার্কিন পুঁজিবাদের সম্পদের একটি রাষ্ট্রেীয় হিসাব -নিকাশ কষার (worth drawing a balance sheet of the state of US capitalism) উপযুক্ত সময় ছিল।

Trump coronavirus Image Flickr White House

গত এক দশকে, লাভ যখন বেড়েছে এবং শেয়ার বাজার তখন উচ্ছ্বসিত হয়েছিল, তখন শ্রমজীবীদের শ্রমের দ্বারা সৃষ্ট সম্পদের সিংহভাগ শীর্ষে থাকা কতক মুষ্টিমেয় পরজীবী সমৃদ্ধ হয়েছিল। ফোর্বস ম্যাগাজিনের তালিকায় ৪০০ বিশ্ব শীর্ষ ধনীদের সম্পদের পরিমান ২০০৯ সালের ১.২৭ ট্রিলিয়ন ডলার হতে দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়ে ২০১৯ সালে প্রায় ৩ ট্রিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে — তবুও তাদের করের হার হ্রাস করা হয়েছে। গত তিন দশকে, শীর্ষ ১% ধনীর সম্পদ ২১ ট্রিলিয়ন ডলার বেড়েছে, এবং বিশ্বের দরিদ্রতম ৫০% মানুষের নিট সম্পদ ৯০০ বিলিয়ন ডলার হ্রাস পেয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ ১% ধনী পরিবারগুলির সংখ্যা ১.২ মিলিয়ন এবং এদের সম্পদের পরিমান ৩৫ ট্রিলিয়ন ডলার। ২০০৯ সালের মহা মন্দার পর ২৭% হতে বৃদ্ধি পেয়ে ৩২% হয়েছে।

গত বছরের শেষে, মাত্র ০.১% আমেরিকান ধনীরা ৯০% নিম্নতম শ্রেণীদের সমান সম্পদের মালিক ছিল। ২০১৮ সালে কর্পোরেট মুনাফা মোট ২.৩ ট্রিলিয়ন, যা মেক্সিকোর মোট জিডিপির দ্বিগুণ ছিল। তিন ব্যক্তি – জেফ বেজোস, বিল গেটস এবং ওয়ারেন বাফেট – সম্মিলিতভাবে ১৬০ মিলিয়ন আমেরিকান এর চেয়ে বেশি সম্পদের মালিক। এটি দেশের অর্ধেক জনসংখ্যার বা ৪০ টি ক্ষুদ্রতম রাজ্যের সংযুক্ত জনসংখ্যার সমতুল্য। সম্পদের এই অদ্ভূদ স্থানান্তর একটি উন্মুক্ত গোপন বিষয় এবং এটি “ধনকুবেরদের আশ্রয়” উদীয়মান দাবির ব্যাখ্যা করে, যেখানে অতিরিক্ত ধনীদের মধ্যে অনেকে ইতিমধ্যে আরামদায়ক আশ্রয় নিয়েছে – তারা এটিকে প্রয়োজন বলে মনে করার অনেক আগেই।

১৯৭৮ সাল থেকে শ্রমিকের গড় ক্ষতিপূরণ মাত্র ১২% বৃদ্ধি পেয়েছে। তুলনা অনুযায়ী, একই সময়কালে কোম্পানীগুলোর কর্মক্ষমতা (CEO compensation) ৯৪০% বৃদ্ধি পেয়েছে। আমেরিকানদের এক-পঞ্চমাংশের গড় শূন্য বা ঋণাত্মক সম্পদ রয়েছে, এবং প্রায় ৮০% বেতনের চেকের উপর বেঁচে থাকে। ৪৪% শ্রমিক এক বছরে গড়ে ১৮,০০০ ডলার মজুরিতে কাজ করছেন।

ফেডারেল ন্যূনতম মজুরি এক ঘন্টায় মাত্র ৭.২৫ ডলারই রয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বেশিরভাগ শহরে একটি বেডরুমের অ্যাপার্টমেন্টের জন্য ন্যূনতম মজুরির শ্রমিকদের ২.৫ ফুলটাইম কাজ করতে হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ছয় জনের মধ্যে একটি শিশু দারিদ্র্যে বাস করে। তাদের অর্ধেক চরম দারিদ্র্যে বাস করে। ছয় মিলিয়ন বাচ্চাদের পরিবার সরকারী দারিদ্র্য স্তরের অর্ধেকেরও কম সীমার নীচে বাস করে।

তারপরে কর্মজীবী মহিলা এবং বিশেষত কর্মজীবী মায়েদের অবস্থান রয়েছে। ১৯৭০ এর দশক থেকে শিশু যত্নে প্রতি শিশুর ব্যয় ২,০০০% এরও বেশি বেড়েছে। নব্বইয়ের দশক থেকে, শিশু-যত্ন ব্যয় সামগ্রিক মুদ্রাস্ফীতি হিসাবে দ্বিগুণ দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছে। ক্যালিফোর্নিয়ায়, একটি সাধারণ ডে-কেয়ার সেন্টারের ব্যয় এখন একক মায়ের মধ্যম আয়ের প্রায় অর্ধেকের সমান।

অত্যধিক মাত্রায় মাদকদ্রব্য, ধূমপান, অ্যালকোহল এবং আত্মহত্যাগুলি সাদা রংয়ের মহিলাদের জন্য আয়ু হ্রাসে অবদান রেখেছে, যারা কালো এবং লাতিনো মহিলাদের তুলনায় ঐতিহাসিকভাবে জীবনযাত্রায় উচ্চ মানের। অবাক হওয়ার কিছু নেই যে, টানা চার বছর ধরে মার্কিন জন্মহার হ্রাস পেয়েছে এবং গত ৩২ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন জন্মের সংখ্যা নিয়ে।

এর অর্থ হল শোষক শ্রমের উৎস হিসাবে অভিবাসন আগের চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তবুও, স্থানীয় রাজনৈতিক স্বার্থে “বিভাজন ও শাসন” নীতিতে, এই শ্রমিকদের সন্ত্রাসী হিসাব আখ্যা দেয়া হচ্ছে এবং বঞ্চিত করা হচ্ছে, আরও গভীরে জোর করে শোষণ ও নিপীড়ন চালানো হচ্ছে। দেশজুড়ে শহরগুলি মহামারীটির ছড়িয়ে যাওয়া বন্ধ করতে তালাবদ্ধ করা হয়েছে, অভিবাসী ও কাস্টম কর্মকর্তাগণ (ICE) হাসপাতালগুলিতে অভিযান চালাচ্ছিল এবং সম্ভাব্য সংক্রামিত অনিন্ধিত অভিবাসীদের ধরে বন্দী করার জন্য। অভিবাসী শিবিরগুলির ঘনত্বের ভয়াবহতা আমেরিকান পুঁজিবাদের দুর্বোধ্য প্রকৃতির আর একটি উদাহরণ, যা সমগ্র মানবতাকে তার কৃত্রিম সীমানার মধ্যে রাখতে পারে না।

২০১৩ সালে ফিলাডেলফিয়ায় আফ্রো-আমেরিকান কালো মানুষের প্রতি অত্যাচার ও নিগ্রহের বীরুদ্ধে শুরু হওয়া আন্দোলন (#BLM) এর পরবর্তী যুগে কৃষ্ণাঙ্গরা সাদা মানুষদের চেয়ে দশগুণ বেশি হত্যাকাণ্ডে মারা যাওয়ার আংশকায় রয়েছে । কালো বাচ্চাদের সাদা বাচ্চাদের তুলনায় তাদের প্রথম জন্মদিনের আগে মারা যাওয়ার আশংকা তিনগুণ বেশি। নিউ ইয়র্ক সিটিতে, যা বর্ণ ও জাতিগতভাবে পৃথক, পূর্ব হার্লেমে বসবাসকারী লোকেরা গড়ে ৭১.২ বছর বেঁচে থাকেন এবং কয়েকটা ব্লক দূরে উচ্চ-পূর্ব দিকে যারা বাস করেন তারা গড়ে ৮৯.৯ বছর বেঁচে থাকেন। বেশিরভাগ রাজ্যই সাদা লোকদের চেয়ে পাঁচগুণ বেশি হারে কালো মানুষকে বন্দী করা হয়। কালো পূর্ণকালীন কর্মীদের জন্য সাধারন সাপ্তাহিক উপার্জন জুলাই ২০১৯ থেকে সেপ্টেম্বর ২০১৯ পর্যন্ত ৭২৭ ডলার, যেখানে সাদাদের ৯৪৩ ডলার – জীবন ধারনের মধ্যেই ৩০% পার্থক্য। অর্থনীতি যেভাবে কেন্দ্রীভূত হচ্ছে, আমরা নিশ্চিত হতে পারি যে এই বৈষম্য আরও গভীর হবে।

তারপরে রয়েছে স্বাস্থ্যসেবার সংকট। করোনাভাইরাস যুগের আগেও, বীমা সংস্থাগুলি, হাসপাতালগুলোর এবং বৃহৎ ঔষধ কোম্পানীসমূহের পক্ষে সর্বাধিক মুনাফা অর্জনের স্বার্থে একটি স্বাস্থ্যসেবা প্রদ্ধতি চালু হয়েছে, যা ভিত্তিহীন, জনসাধারণের মত বিরোধী এবং কায়েমী স্বার্থবাদী। এখন এটি দশগুণ বৃদ্ধি হচ্ছে। লক্ষ লক্ষ আমেরিকান প্রথমে স্বাস্থ্য বীমা সাধ্যের সীমায় আনার জন্য আন্দোলন করে এবং যাদের এটি রয়েছে তারা চিকিৎসা ঋণ থেকে ছাড় পাচ্ছে। প্রতি ছয় আমেরিকানের একজনের প্রতিবেদনে অপরিশোধিত চিকিৎসা ঋণ রয়েছে, যা এখন মোট ৮১ বিলিয়ন ডলার। চিকিৎসা-সঙ্কটজনিত ঋণের কারণে প্রতি বছর প্রায় ৫৩০,০০০ ঋণ পরিশোধে অক্ষমতা নথিভুক্ত থাকে। কোভিড-১৯ পরীক্ষা বিনামূল্যে দেওয়া যেতে পারে – যদি আপনি এটি খুঁজে পান – তবে চিকিৎসা ব্যয় ইতিমধ্যে অগণিত সংখ্যক দরিদ্র আমেরিকানদের দেউলিয়া করতে পারে।

এক দশকেরও বেশি সময় ধরে ঝুঁকি হ্রাস সহায়তা “পুনরুদ্ধার” প্রচলন হওয়ার পরেও, প্রতি পাঁচজনের দুই জন আমেরিকান প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি তাদের জরুরি চিকিৎসা ব্যয় ৪০০ ডলার নামিয়ে আনতে সংগ্রাম করতে হয় এবং তিনটি পরিবারের একটিকে “আর্থিকভাবে ভঙ্গুর” হিসাবে বিভক্ত করা হয়েছে। ডেমোক্র্যাটিকদের এবং রিপাবলিকানেদের কয়েক দশক ধরে কাটাছেঁড়ার পর “সামাজিক সুরক্ষা নেট” ইতোমধ্যে ছেঁড়া টুকরায় পরিনত হয়েছে। সর্বশেষ বিশৃঙ্খলার আগে ট্রাম্প কয়েক মিলিয়ন দরিদ্র আমেরিকানদের উপর হতে নির্ভরশীল খাদ্য স্ট্যাম্প, মেডিকেয়ার, মেডিকেড, বিকলাঙ্গতা, ভর্তুকিযুক্ত শিক্ষার্থী ঋণ এবং অন্যান্য কর্মসূচিতে এবং কর বিরতির জন্য কয়েকশ কোটি টাকার ছাড় প্রস্তাব করেছিলেন।

পৃথিবীতে কয়েক মিলিয়ন মানুষ কিভাবে দু’সপ্তাহের পৃথকীকরণ (quarantine) এর জন্য বা তার চেয়ে বেশি লম্বা সময়ের জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনার সামর্থ্যের কথা বলে -তা কারও বোধগম্যতার বাইরে। এমনকি প্রস্তাবিত ১,০০০ ডলারের অনুদানের চেকগুলি যদি প্রদান করা হয়, তা দ্বারা কেবলমাত্র গ্রহিতাদের অস্থায়ীভাবে কিছু দিন চালিয়ে রাখতে পারবে – যে আমেরিকান পুঁজিবাদ তাদের জন্য গর্ত খনন করে রেখেছে, তাতে তারা আরও গভীরে ডুবে যাওয়ার আগে ।

যুবকদের ক্ষেত্রে, তারা ক্রমবর্ধমান সামাজিক অসন্তোষের জন্য একটি সংবেদনশীল বায়ুর চাপ মাপা যন্ত্রের ন্যয় এবং বিশেষত সংকট দ্বারা আক্রান্ত। আত্মহত্যা এখন ১০ থেকে ১৭ বছর বয়সীদের জন্য মৃত্যুর দ্বিতীয় শীর্ষ কারণ। দশ বছর আগে আত্মহত্যা এই বয়সের জন্য মৃত্যুর চতুর্থ শীর্ষ কারণ ছিল। উদ্বেগ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সর্বাধিক সাধারণ মানসিক রোগ, এবং আনুমানিক ৩২% কিশোর-কিশোরীদের কমপক্ষে একটি উদ্বেগজনিত ব্যাধি রয়েছে। একমাত্র নিউইয়র্ক সিটিতে, ১১৪,০০০ শিক্ষার্থী গৃহহীন, গত দশকে এটি ৭০% বৃদ্ধি পেয়েছে। ডেমোক্রেটিক পার্টি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত শিকাগো এবং লস অ্যাঞ্জেলেস শহরগুলির মতো বড় শহরগুলিতেও একই হার রয়েছে।

পৃথিবীর সবচেয়ে ধনী দেশে এটিই আসল পরিস্থিতি। এমনকি কোভিড-১৯ এর আগেও জিনিসগুলি পুরোপুরি এক প্রান্তে ঠেলে দেয়া হয়েছিল, লক্ষ লক্ষ আমেরিকান এক বছরে যথেষ্ট উপার্জন করতে পারেনা, আবাসন, স্বাস্থ্যসেবা, পরিবহন এবং শিক্ষার সর্বাধিক প্রাথমিক ব্যয় বহন করতে, খাদ্য, পোশাক, বিনোদন, এবং সঞ্চয় এসব “বাড়াবাড়ি” তো দূরের কথা। স্থুলতা, আফিম, হেরোইন, উদ্বেগ, আত্মহত্যা, এইচআইভি ভাইরাস এবং আরও অনেক চলমান মহামারীও বিশেষত দেশের গ্রামীণ অঞ্চলেও এখন কোনও দুর্ঘটনা নয়।

নির্বাচন ২০২০

এতকিছুর মাঝেও, ২০২০ সালের নির্বাচন প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। যেমনটি আমরা আগে ব্যাখ্যা করেছি, শাসক শ্রেণী স্যান্ডার্সের পদমর্যাদা বন্ধ করে দিয়েছিল এবং তাদের সমস্ত পণ বিডেনের উপর চাপিয়ে দিয়েছে। যদিও মহামারীটি ওহিওতে ডেমোক্রেট প্রাথী নির্বাচনের ভোটাভুটি প্রাথমিকভাবে স্থগিত করেছে, ফ্লোরিডা, ইলিনয়, এবং অ্যারিজোনায় ভোটে বিডেন এগিয়ে গিয়েছিল এবং অনিয়ন্ত্রিত প্রতিনিধি পরিষদের ভোটে তিনি এগিয়েও যেতে পারেন। এখন যতটুকু ঘাটতি রয়েছে তা পূরণে তাকে অবশিষ্ট প্রতিযোগিতায় প্রায় ৪০ পয়েন্ট জিততে হবে। “দলকে ঐক্যবদ্ধ করতে” এবং প্রতিযোগিতা থেকে বেরিয়ে আসতে স্যান্ডার্স এর উপর চাপ বাড়বে।

যারা দাবি করেছে যে, ডেমোক্র্যাট হিসাবে বার্নিকে সমর্থন করা একটি “নতুন কৌশল” এর একটি অংশ এবং খুব শীঘ্রই কম-দুষ্টবাদের এক বৈকল্পিক নয় – এমন একটি খুব বাস্তব প্রশ্নের মুখোমুখি হবে। এখন জো বিডেনকে সমর্থন করবে নাকি করবে না – বার্নি নিজেই নিজের সাথে যুদ্ধ শুরু করেছে। সমস্ত উৎসাহ, অর্থ এবং সময় যা স্যান্ডার্সের পক্ষে প্রচারের জন্য ব্যয়িত হযেছে তার উৎস এখানেই । এটি ডেমোক্র্যাটিক পার্টির শেষ-সমাপ্তি যা সমস্ত প্রগতিশীল আন্দোলনের জলাবদ্ধতা। যদি সকল সম্পদ এবং সমস্ত শক্তির পরিবর্তে একটি নতুন সমাজতান্ত্রিক দল গঠনের উদ্দেশ্যে তৈরি করা হত, যা দ্বিদলীয় একচেটিয়া রাজনীতিকে চ্যালেঞ্জ জানাতে পারত, তবেই আমরা আজকে খুব আলাদা জায়গায় উপস্থিত হতাম।

COVID 19 Test Image Governor Flickr Tom Wolf

কোভিড-১৯ দ্বারা সবকিছু উল্টে যাওয়ার সাথে সাথে লক্ষ লক্ষ লোক সরকার ব্যবস্থার জন্য আলাদা দৃষ্টিভঙ্গির জন্য উন্মুক্ত হবে এবং আমেরিকান রাজনীতি ও সমাজের মৌলিক পরিবর্তনের দ্বার বন্যায় ভেসে যেতে পারে। বর্তমান সময়ের সামাজিক ও রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে ভবিষ্যতের গণ পার্টি কী রূপ নেবে তা সঠিকভাবে নির্ধারণ করা অসম্ভব এবং সংকটের নিখুঁত পরিমাপের মধ্য দিয়ে বন্যায় দ্বারটি ভেসে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। সান্ডার্স নতুন কিছু চালু করতে সাহায্য করবে এমন একটি সুযোগের এখনও সবচেয়ে ক্ষুদ্রতম চিহ্ন রয়েছে। তবে তিনি এই প্রক্রিয়াটিতে একটি সিদ্ধান্তমূলক ভূমিকা রাখার সুযোগটি হারিয়ে ফেলেছেন। নিশ্চিত হতে, বার্নি “কথোপকথনটি সরিয়ে নিয়েছেন” এবং এককভাবে সমাজতন্ত্র কি এবং কি নয় – তা নিয়ে জাতীয় বিতর্ক শুরু করেছেন। তবে তিনি লক্ষ্যস্থলগুলি স্থানান্তরিত করেননি এবং নিজেকে পুঁজিপতিদের খেলার মাঠ এবং নিয়মের সীমাবদ্ধ করে রেখেছে।

সাম্প্রতিক জরিপগুলি ইঙ্গিত দেয় যে, সাধারণ নির্বাচনে বিডেনের ট্রাম্পকে পরাজিত করার ভাল সম্ভাবনা রয়েছে। তবে যদি এক সপ্তাহ সাধারণ সময়ের রাজনীতিতে অনন্তকাল ধরা হয়, তবে ইহা অসম্ভব যে, বহু মাস ধরে প্রতিনিধিত্ব করলে কিরূপ হবে – তা বর্ণনা করা । ট্রাম্পের বিশাল, হৈচৈপূর্ণ জনতার কাছে অভিগমন হ্রাস কি তার আবেদনের আভা কমিয়ে দেবে? মহামারী এবং অর্থনৈতিক মন্দার ক্ষেত্রে তিনি যে সহজেই যুক্তরাষ্ট্রে তা ছড়িয়ে দিয়েছেন – তার মোকাবেলায় তার অবক্ষয় ও ব্যর্থতা নিয়ে কি সে নিন্দিত হবে? নাকি তিনি চীন ও ইউরোপকে বোকা বানিয়ে এই সঙ্কটের জন্য পার পাবেন? ভোটাররা কি সিদ্ধান্ত নেবে “ঘোড়া বদলে দেওয়ার” – নাকি না? শুধুমাত্র সময় বলে দেবে। যেভাবেই হোক না কেন, পুঁজিপতিদের হোয়াইট হাউসে তাদের সুবিধার্থে রক্ষক থাকবে এবং মার্কিন শ্রমিকরা ক্ষতিগ্রস্থ হবে। ২০১৬ সালের মতো, একটি নতুন গণশ্রমিক-শ্রেণির দলের ভিত্তি স্থাপনের জন্য রাজনৈতিকভাবে অভিযুক্ত নির্বাচন ব্যবহার করার আরেকটি প্রথা চালু করার সুযোগ হাতছাড়া হয়েছে।

এবং এখনও, ব্যাপক শ্রমিকের মাঝে সত্যিকারের সমাজতান্ত্রিক ধারার জন্য একটি আন্দোল গড়ে উঠেনি। নির্বাচনী রাজনীতি শ্রেণী সংগ্রামের একমাত্র ক্ষেত্র নয়, এবং সংকট সমাজ ব্যবস্থার প্রতিটি দিক বুর্জোয়া দ্বি-দলীয় ব্যবস্থা দিয়ে শুরু করে দিয়েছে। ঘটনাগুলি অতিরিক্ত গতিতে চলার সাথে সাথে আমরা অস্বীকার করতে পারি না যে সামনের মাসগুলিতে অন্যান্য শ্রেণি সংগ্রাম ও সংগঠনের উত্থান হতে পারে, শ্রমজীবী রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক শক্তির প্রশ্ন রেখে কারো প্রত্যাশা করার অনেক আগেই।

শ্রমিকদের জন্য সরকারের!

এমনকি “সর্বোত্তম সময়েও”, বেশিরভাগ শ্রমিকগণ যে সকল সমস্যার মোকাবেলা করে তার সমাধা করা হয় না – মানসম্মত চাকরির অভাব থেকে শুরু করে স্বাস্থ্যসেবা, গৃহ হতে সন্তানদের পড়াশোনা পর্যন্ত সমস্যা – পুঁজিবাদের অধীনে সমাধান করা যায় না। এবং এখন আমাদের বলা হচ্ছে যে প্রদ্ধতিটি সংকটগুলির অভূতপূর্ব সমাধান করতে পারে এবং আমাদের জীবনকে আরও উন্নত করতে পারে?

করোনাভাইরাস হল সাম্প্রতিকতম এবং সবচেয়ে সংক্রামক।

বিশ্বজুড়ে মহামারীগুলির সাম্প্রতিক প্রবাহে এটি এমন একটি প্যাটার্ণ যা নিজেই মুনাফা-চালিত কৃষি নির্ভর শিল্প উৎপাদন পদ্ধতি। জনাকীর্ণ পরিবেশে পশুপালনের উচ্চ ঘনত্ব একটি প্রভাব হল এটি প্যাথোজেনগুলির (ব্যকটোরিয়া, ভাইরাস, ফ্যাংগাস, ইত্যাদি রোগ জীবানু) বিরুদ্ধে প্রাণীর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাস করে দেয় এবং মানুষের মধ্যে ভাইরাস সংক্রমণের গতি ত্বরান্বিত করে। বিরল প্রাণীদের অবৈধ হত্যা ও বাণিজ্য নতুন রোগের উত্থানের আরেকটি সম্ভাব্য উৎস যা মানুষ নিজেদের বিপদ ডেকে আনে। বিশেষত বিপন্ন প্যাঙ্গোলিন যা হত্যা করে অবৈধবাবে পাচার করা হয় তা কোভিড-১৯ এর মানুষের মধ্যে ছড়ানোর সন্দেহজনক উৎস হিসাবে চিহিৃত।

সুতরাং আমেরিকান পুঁজিবাদী উৎপাদন এবং বিতরণের সীমাবদ্ধতার মধ্যে – বৈধ এবং অবৈধ উভয়ই – এই নির্দিষ্ট করোনভাইরাস যা জনসাধারণের মধ্যে প্রবেশে বাধা থাকতে পারে বা নাও থাকতে পারে। আমরা কিভাবে আমাদের যৌথ সম্পদ বরাদ্দ করি তা যদি ব্যক্তিগত সম্পদ দিয়ে পরিমাপ না করতাম তবে এর বিস্তার ও ধ্বংসযজ্ঞের মাত্রা সহজেই মোকাবিলা করা যেত।

ক্ষমতাসীন পদের অনেকেই বলেছে যে, বিভিন্ন প্রকৃতির প্রচুর সম্পদের সংস্থান প্রয়োজন, যার দ্বারা কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে মুখোমুখি লড়তে- যেমন আমরা যুদ্ধ করেছিলাম। আমরা আন্তরিকভাবে স্বীকার করি যে, শ্রেণিবদ্ধের ভিত্তিতে এই সংযোজন অবশ্যই মুখোমুখি। শ্রমিক ও পুঁজিপতিদের স্বার্থ বহুমাত্রিকভাবে বিরোধী। যুদ্ধকালীন সময়ে পুঁজিপতিদের নীতি শান্তির সময়ের মতো: মুনাফা সর্বাধিকীকরণ এবং তাদের সম্পত্তির অধিকার রক্ষা। লোভ এবং নিষ্ক্রিয়তার মাধ্যমে যারা এই রোগটিকে এই স্তরে আরো বাড়তে দিয়েছিল তাদের প্রতি আমরা আমাদের ভাগ্যকে বিশ্বাস করতে পারি না।

আমেরিকান পুঁজিবাদীরা প্রস্তাব দেয় যে, টেকসই ব্যবস্থা বিহীন রাষ্ট্র নজীরবিহীন মাত্রায় তাদের বিপর্যকর ব্যবস্থার উন্নয়নের জন্য অনর্থক ব্যয় করতে। তাদের মধ্যে কেউ কেউ দেশটিকে এমন সঙ্কটের মধ্য নিয়ে আনার জন্য জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাকে আংশিক ও অস্থায়ী জাতীয়করণের জন্য দায়ী। এমনকি ন্যাশনাল গার্ড এবং সক্রিয় দায়িত্বরত সামরিক বাহিনীর সদস্যদের ব্যবহার করছে। ট্রাম্প হাসপাতালের মাস্ক এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় উপাদানগুলোর উৎপাদন সম্প্রসারণের জন্য যুদ্ধকালীন প্রতিরক্ষা উৎপাদন আইনকেও ব্যহার করেছে।

কয়েক দশক ধরে বলা হচ্ছে যে “বড় সরকার” হল শত্রু এটি একটি নীরব প্রশাসন যে, যখন ধাক্কা আসে তখন কেবলমাত্র রাষ্ট্র এবং দ্রুততা ও দক্ষতার সাথে তার পক্ষে কেন্দ্রীয় পরিকল্পনা কার্যকর করার ক্ষমতা প্রয়োগের মাধ্যমে গুরুতর সংকট মোকাবেলা করতে পারে । তবে সংখ্যাগরিষ্ঠের সর্বোত্তম স্বার্থে কাজ করার জন্য কোন ধরণের রাষ্ট্রকে বিশ্বাস করা যেতে পারে? শ্রমিকদের স্বার্থ রক্ষার জন্য কি ট্রাম্প প্রশাসনের উপর আস্থা রাখা যায়? প্রশ্নের মধ্যেই উত্তর আছে।

যা সম্ভব তা নিয়ে মার্কসবাদীদের আলাদা দৃষ্টি রয়েছে:

একটি শ্রমিকের রাষ্ট্রধর্মকে আমেরিকান পুঁজিবাদের বাইরে নিয়ে যাওয়া, লাভজনক সংস্থাগুলির সমস্ত সম্পদ বাজেয়াপ্তকরণ থেকে শুরু করে গণতান্ত্রিক শ্রমিকদের নিয়ন্ত্রণে জনস্বার্থে পরিচালিত হওয়া। এই শ্রমিকদের সরকার এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় পুরো শ্রমিক শ্রেণিকে একত্রিত করবে।



যুক্তরাষ্ট্রের দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা (Incident Management Team professional development and training – IMT) কর্মসূচীর আওতায় সম্পূর্ণ ক্রান্তিকালীন সময়ে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধাসমূহ সরকার কর্তৃক, এবং দ্বারা শ্রমজীবী মানুষকে কার্যে পরিণত করবে – এর কিছু ব্যবস্থা নীচে দেওয়া হল – যদি এর আগে এতদিনেও এটা করা হয়নি:
  • মুদি, রসদ, যাতায়ত, স্বাস্থ্যসেবা এবং অন্যান্য শিল্পগুলিতে কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রথম সারির শ্রমিকদের “তাৎক্ষণিকভাবে মজুরি দ্বিগুণ এবং ইউনিয়নের স্বীকৃতি প্রদান এবং সুরক্ষা প্রদান” করতে হবে। তাদের পদবীর চারগুণ উন্নয়ন ঘটবে এবং লক্ষ লক্ষ বেকারদের প্রশিক্ষণ দিয়ে এ যুদ্ধে শামিল করতে হবে। ভাইরাসটির বিস্তার রোধে প্রয়োজনীয় সমস্ত সুরক্ষা সরঞ্জাম এবং সুরক্ষা সরবরাহকারীদের গ্যারান্টি দিতে “কোনও ত্রূটি রাখা যাবে না”!
  • প্রতি সপ্তাহে জাতীয় সর্বনিম্ন মজুরির জন্য ১০০০ ডলার – আপনি বর্তমানে কর্মরত রয়েছেন বা না থাকুন এবং আপনি বর্তমানে আপনার চাকরিতে যেতে সক্ষম নাকি সক্ষম না- সে বিবেচনা না করেই ইহা দিতে হবে। কেন ব্যক্তি শ্রমিকদের এবং দরিদ্রদের এইরূপ সম্মিলিত সঙ্কটে অর্থ প্রদান করতে হবে? দারিদ্র্য এর জন্য যারা কান্না করে এবং এর অক্ষমতার জন্য হাহুতাশ করে -এমন সংস্থাগুলিকে তাদের হিসাব খুলতে বাধ্য করা উচিত। যদি তারা সত্যিকার অর্থে পরিশোধ করতে না পারে, তবে তাদের মালিকদের উচিত তাদের মারলকানা হতে শ্রমিকদেরকে মুক্তি দেওয়া । গণতান্ত্রিক কর্মীদের নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনার অধীনে তাদের জাতীয়করণ করা এবং প্রত্যেকের কাজ নিরাপদ এবং তাদের বেতন নিশ্চিত করার জন্য যুক্তিযুক্ত পরিকল্পনার বিষয়টি অর্থনীতিতে সংহত করা।
  • যে কোনও কারখানা বা অন্যান্য জরুরী কর্মক্ষেত্র যা বন্ধ বা সাময়িকভাবে বন্ধ করা হয়েছে, এমন অবস্থায় শ্রমিকদের জাতীয়করণ করতে হবে এবং গণতান্ত্রিক শ্রমিকদের ন্যয় পরিচালিত করতে হবে! উৎপাদনের যৌক্তিক পরিকল্পনার জন্য যা খাদ্য সরবরাহ, চিকিৎসা সরবরাহ এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর সরবরাহ চেইনে কোনও ব্যাঘাত যাতে না ঘটে- তা নিশ্চিত করার জন্য সবার জন্য সহজ এমন পরিকল্পনা করতে হবে।
  • ট্রাম্প বিস্মৃতভাবে বলেছেন যে, “আমরা আমাদের লোকদের যার যে যত্ন প্রয়োজন এবং যে যার জন্য উপযুক্ত তা পাওয়ার জন্য প্রতিটি বাধা অপসারণ বা দূর করব। কোনও সম্পদও বাদ দেওয়া হবে না। কিছুই না। “যাইহোক, রাষ্ট্রপতি এই ছোট্ট বিবরণটি এড়িয়ে গিয়েছিলেন যে, প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত এই রূপ কোন কিছুর প্রতিশ্রুতি দেওয়ার প্রধান বাধাটি হল আমেরিকান পুঁজিবাদী ব্যবস্থা নিজেই – এবং এটিই এমন এক বিষয় যা পুঁজিবাদীরা স্বেচ্ছায় সরাতে পারে না এবং তা দূর করতে পারে না। এ কারণেই আমরা পরিষেবার বিন্দুতে একটি সামাজিক স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা বিনামূল্যে দাবি করি। স্বাস্থ্য বীমা, চিকিৎসা সরঞ্জাম এবং ঔষুধ শিল্প, হাসপাতালের নেটওয়ার্ক এবং এতদসম্পর্কিত ক্লিনিকগুলিকে জাতীয়করণ করা এবং এগুলিকে একীভূত করে সরকারীভাবে প্রশাসিত জনস্বাস্থ্য সেবাদানকারী সংস্থা হিসাবে সংহত করা। সমস্ত অব্যবহৃত এবং অপরিহার্য বাণিজ্যিক স্থানগুলিকে জাতীয়করণ করা এবং যাকে যত দ্রুত সম্ভব হাসপাতালে এবং “ফিভার ক্লিনিকে” রূপান্তর করা। “একক প্রদানকারী” বা “সকলের জন্য মেডিকেয়ার” এর প্রস্তাবগুলি স্বাস্থ্যসেবার সিস্টেমের বেশিরভাগ অংশ বেসরকারী হাতে রেখে দেয় এবং সরকারী কোষাগারে সর্বোত্তম সম্ভাব্য মূল্যে সর্বোত্তম সম্ভাব্য যত্নের গ্যারান্টি দেওয়ার পক্ষে এতদূর যায় না।
  • সমস্ত প্রয়োজনীয় আইটেমগুলিতে তাৎক্ষণিক মূল্য নিয়ন্ত্রণের জন্য, শ্রমজীবী-শ্রেণির পাড়ায় নির্বাচিত কমিটিগুলি দ্বারা প্রয়োগ করা! যে কেউ অন্যের দুর্দশা নিয়ে খেলা করে ধরা পড়লে তাদের অতি প্রয়োজনীয় পণ্যগুলি সবাইকে বিতরণ করে দেওয়া ।
  • ভাড়া এবং বন্ধকী অর্থ প্রদানের উপর তাৎক্ষণিক এবং অনির্দিষ্টকালের স্থগিত আদেশ দিতে হবে। শ্রমজীবী বন্ধকী ঋণের হার শূন্যে নিয়ে আসতে হবে এবং শ্রমজীবী পরিবারের ঋণের শর্তাদি পুনর্বিবেচনা করতে হবে। আকাশচুম্বি ভাড়া একটি শ্রমজীবিদের জন্য বড় চাপ, এমনকি “সম্পূর্ণ কর্মসংস্থান” এর সময়ও, আর এখন তো আরো সূচনীয় অবস্থা। অদখলিকৃত বাড়িগুলি সরকারী মালিকানায় নিয়ে যেতে এবং গৃহহীনদের আবাসন ব্যবস্থার সংস্থান করতে এবং আমাদেরকে বড় বড় শহরে ইঁদুরের মতো উপচে পড়া ভিড় থেকে মুক্তি দিতে- এগুলি ব্যবহার করুন। লোকেরা যখন ঘরে থাকার ঘর না থাকে তখন কীভাবে “বাড়িতে থাকতে পারে”?
  • যখন আমরা স্বেচ্ছায় জনস্বাস্থ্যের স্বার্থে সামাজিক দূরত্ব পর্যবেক্ষণ করব, আমরা চাই আমাদের মৌলিক চাহিদার নিশ্চয়তা প্রদান এবং জাতীয় জরুরী অবস্থার নামে আমাদের প্রথম সংশোধনী অধিকারের কোনও সীমাবদ্ধতা গ্রহণ করব না!
  • অর্থনীতির মূল ভারগুলি জাতীয়করণ করুন: বড় শিল্প, ব্যাংক এবং কর্পোরেশন! পুঁজিবাদী মুক্তবাজারের অযৌক্তিক বিশৃঙ্খলা ভেঙে দিন। কৃপণতার দরকার নেই। সংকটটির জন্য ধনী ব্যক্তিদের সাহায্য দিতে বাধ্য করুন! বিলিওনারীদের কোনও ক্ষতিপূরণ নয়, কেবল যাদের প্রকৃত প্রয়োজন তাদের জন্য। শ্রমিকদের সঞ্চয় রক্ষা এবং সকলকে সাশ্রয়ী ঋণের গ্যারান্টি হিসাবে জাতীয়করণকৃত ব্যাংকগুলিকে একীভূত, সার্বজনীন মালিকানাধীন এবং প্রশাসনিক ব্যাংক একীভূত করুন। গণতান্ত্রিক শ্রমিকদের নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনার অধীনে পরিচালিত সমস্ত জাতীয়করণকৃত সংস্থাগুলি সমাজের চাহিদা মেটাতে উৎপাদনের সমাজতান্ত্রিক পরিকল্পনায় একীভূত হয়েছে। শিক্ষার্থী, ক্রেডিট কার্ড এবং অটো-ঋণের অদৃশ্য বোঝা শেষ করে তাৎক্ষণিকভাবে তা বন্ধ করে দিন!

এগুলি হল প্রয়োজনীয় সাহসী ব্যবস্থা – এমন পদক্ষেপ যা রিপাবলিকান বা ডেমোক্র্যাটরা কেউই সরবরাহ করতে পারে না। এগুলো সমস্ত অপ্রয়োগযোগ্য মনে হতে পারে – এবং আমেরিকান পুঁজিবাদের অধীনে, এটি সত্য। কিন্তু বিপ্লবী মার্কসবাদ হল শ্রমজীবী শ্রেণীর বস্তুনিষ্ঠ চাহিদার দাবী এবং সেই প্রয়োজনগুলি পূরণের বস্তুগত সম্ভাবনার উপর ভিত্তি করে। পুঁজিবাদের ভিত্তিতে এই বিষয়গুলি “ব্যবহারিক” বা “বাস্তববাদী” কিনা তা নয়।

বাজারের অনিশ্চয়তা, অপচয় এবং কৃত্রিম প্রতিযোগিতা শেষ করার সময় এসেছে। পৃথিবীর যথেষ্ট পরিমাণে সম্পদ এবং উৎপাদনশীল ক্ষমতা রয়েছে। গ্রহটিকে রূপান্তর করতে এবং কোভিড-১৯ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের ন্যূনতম লোকসানের ক্ষয়ক্ষতি ও জলবায়ু পরিবর্তনের মতো সংকট মোকাবেলার জন্য। দেশের শীর্ষস্থানীয় ৫০০ বা এত এত কর্পোরেশনগুলো জিডিপির বিশালতার জন্য। এই সংস্থাগুলির অনেককেই ক্ষমতাসীন শ্রেণীর দ্বারা “ব্যর্থ হতেই পারেনা এমন বিরাট” বলে মনে করা হয়। মার্কসবাদীরা তাদের “ব্যক্তিগত হাতে ছেড়ে দেয়ার তুলনায় খুব বড়” বলে বিবেচনা করে।

আমরা মাত্র এক সপ্তাহ বা দুবছর আগে যে পৃথিবীতে বাস করেছি তা এখন মৃত এবং সমাহিত। সেই পৃথিবী থেকে প্রবাহিত আদর্শ ও বিশ্ব দর্শনগুলি আর কার্যকর হয় না। সমাজ পুনর্গঠন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। পুঁজিপতিদের পক্ষে উপযুক্ত পদের পুনর্গঠন হবে কি না বা শ্রমিক শ্রেণি পরবর্তী ঐতিহাসিক যুগে তার ভাগ্য নিজের হাতে নিয়ে চলেছে কি না, তা এখন প্রশ্ন।

যদিও অনেক শ্রমিকের এক সময়ের জন্য মাথা নিচু থাকবে, অবশেষে শ্রমিকরা তাদের জীবন-জীবিকা এবং জীবনের পরিস্থিতি রক্ষায় সংগঠিত ও পদক্ষেপ নেওয়ার সাথে সাথে ধর্মঘট, বিক্ষোভ ও গণ সামাজিক আন্দোলনের একটি ঢেউ উঠবে। কর্মক্ষেত্রের পেশা এবং কমিটিগুলিও এখন শুধু কাগুজে হয়ে আছে, কারণ লক্ষ লক্ষ লোককে কাজের বাইরে ফেলে দেওয়া হচ্ছে। এবং শ্রম-শ্রেনী ও দরিদ্র পাড়ার আশেপাশের বাসিন্দাদের সুরক্ষা এবং সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে আমাদের প্রতিবেশ কর্ম ও প্রতিরক্ষা কমিটিগুলির উত্থানের বিষয়টি অস্বীকার করা উচিত নয়। এই সমস্তগুলি সাম্প্রতিক মাসগুলিতে ইকুয়েডর এবং সুদানের মতো জায়গাগুলিতে আমরা যে ধরণের দ্বৈত-শক্তি পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছি তার জন্য ভিত্তি স্থাপন করতে পারে।

এই ধরনের উন্নয়নের ছন্দটি অনুমান করা অসম্ভব। মার্কসবাদীদের স্ফটিক বল নেই, এবং আমরা বুঝতে পারি যে, গভীর সঙ্কটের সময়কালেও অস্থায়ী উত্থান হতে পারে। এটা সম্ভব যে, বিবেচনাধীন উদ্দীপনা ব্যবস্থাগুলি জিনিসগুলিকে স্থিতিশীল করতে এবং অস্থায়ীভাবে এই জাতীয় ঘটনার উত্থানকে কাটাতে পারে। তবে মৌলিক কোনও কিছুই সমাধান করা হয়নি এবং শ্রমিক শ্রেণির আত্মবিশ্বাস গভীরভাবে ছড়িয়ে পড়েছে।

মাত্র এক দশকের মধ্যে দ্বিতীয়বারের মতো শ্রমিকদের উপর একটি “নতুন স্বাভাবিকতা” তৈরি করা হচ্ছে। সিস্টেমের অস্থিতিশীলতা এবং পূর্বসূচির বিষয়টি যখন আসে তখনই “যথেষ্ট” এই অনুভূতি শীঘ্রই বা পরে লক্ষ লক্ষকে কর্মে যেতে বাধ্য করবে। সুতরাং আমরা যুক্তিসঙ্গতভাবে অনুমান করতে পারি যে, আমরা যে সময়কালে প্রবেশ করেছি তা ২০০৮, ১৯৭০ এবং এমনকি ১৯৩০-এর দশকের চেয়ে বেশি অশান্তিপূর্ণ হবে। অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত পরিণতি হবে। তবে একটি ফলাফল আমরা ভবিষ্যদ্বাণী করতে পারি যে, একটি নির্দিষ্ট পর্যায়ে, জায়গামতই একটি প্রাক-বিপ্লবী পরিস্থিতি ঠিক এখানে উপস্থিত হবে।

দুর্ভাগ্যক্রমে, বর্তমান শ্রমিক নেতারা তাদের সদস্যদের বিপুল সম্ভাবনা শক্তি – এই দিকে চালিত করার জন্য অর্থবহ কিছু করেননি। পরিবর্তে, এএফএল-সিআইওর প্রধান, রিচার্ড ট্রমকা কর্তৃক ফেডারেশনের ১৩ মিলিয়ন সদস্যকে পেশার সুরক্ষা এবং স্বাস্থ্য প্রশাসন (Occupational Safety and Health Administration-OSHA) এর আওতায় আরও ভাল সুরক্ষার মান প্রয়োগের দাবিতে “আপনার প্রতিনিধিকে ডাকুন” আহ্বান জানান। এটি যেন আপনার প্রতিবেশীদের সিটি কাউন্সিলের কাছে আবেদন করার অনুরোধ জানানোর মতো – একটি জলোচ্ছ্বাস বাড়িঘর এবং রাস্তাগুলি লন্ডভন্ড করে ফেলার পর নতুন ফুটপাতের জন্য জিজ্ঞাসা করা!

শ্রমিকরা দিশেহারা এবং বিস্মিত হচ্ছে, ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে নিখুঁত পরিমাপ দ্বারা। প্রভাবটি পরিষ্কার যে, শ্রেণিবদ্ধ নেতৃত্বের অভাব দ্বারা বহুগুণ হয়। কিন্তু বর্তমান অ্যাটমাইজেশন এবং বিস্ফোরণ অবশেষে এর বিপরীতে পরিণত হবে? কারণ, লক্ষ লক্ষ আমেরিকান বুঝতে পারে যে, পৃথক সমাধান যথেষ্ট হবে না। সংহতি ও সম্মিলিত পদক্ষেপ নেওয়া দরকার এবং আমরা নিশ্চিত যে শ্রমজীবী শ্রেণীর সীমাহীন শক্তি এবং সৃজনশীলতা এটিকে বাস্তবে রূপ দেওয়ার উপায় খুঁজে পাবে।
গত দশক ধরে ধীরে ধীরে আমেরিকান পুঁজিবাদী প্রদ্ধতিগুলোর সমস্ত অসঙ্গতি এখন দেখা দিচ্ছে। আমরা প্রকৃতপক্ষে একটি যুদ্ধের মধ্যে রয়েছি — এবং বলা হয় যে, যুদ্ধটিই বিপ্লবের হাতের কাজ। যুদ্ধ, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সঙ্কটের মতো ঘটনা দ্বারা সৃষ্ট “স্বাভাবিক” জীবনে বিঘ্ন চেতনাতে নাটকীয় পরিবর্তন। লক্ষ লক্ষ মানুষকে এমন পথে নামানো হচ্ছে যা অনিচ্ছাকৃতভাবে বিপ্লবের দিকে নিয়ে যায়।

বিপ্লবী সংস্থা অনুঘটক হিসাবে উপস্থিত থাকলে বিপ্লবের সম্ভাবনা এবং বাস্তবের মধ্যে বিকাশের বাঁকটি উল্লেখযোগ্যভাবে ত্বরান্বিত হতে পারে। ইহা IMT এর দৃষ্টিকোণটিতে প্রস্তুত করছে। আমাদের “সম্মিলিত শক্তি” দরকার এবং আমরা আপনাকে অনেকগুলি শাখা এবং আলোচনার গ্রুপ কনফারেন্স কলগুলির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানাই। কারণ, আমরা আন্দোলন এবং সমাবেশগুলির উপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞাগুলি বাস্তবায়িত করার সাথে সাথে নিজেদের বাস্তব পৃথিবীর দিগন্তের লড়াইয়ের দিকে ছুঁড়ে ফেলার জন্য প্রস্তুত করছি।

Original Writer: Socialist Revolution Editorial Board (USA)

সম্পর্কিত পোস্ট

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত