33 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
বিকাল ৩:০২ | ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
গত ২৮ বছরে ঢাকায় সবুজ কমেছে ৯ শতাংশ: বিআইপি
পরিবেশ গবেষণা বাংলাদেশ পরিবেশ

গত ২৮ বছরে ঢাকায় সবুজ কমেছে ৯ শতাংশ: বিআইপি

গত ২৮ বছরে ঢাকায় সবুজ কমেছে ৯ শতাংশ: বিআইপি

রাজধানী ঢাকায় কংক্রিটের জঞ্জাল বাড়ছে, সমান তালে কমছে সবুজের পরিমাণ। এতে নগরীতে অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে তাপমাত্রা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কয়েক দশক আগেও নগর–পরিকল্পনার মানদণ্ড অনুযায়ী ঢাকা শহরে পর্যাপ্ত সবুজ এলাকা ও জলাশয় ছিল। কিন্তু সরকারি–বেসরকারি সংস্থাগুলোর স্থাপনা নির্মাণের কারণে উজাড় হয়েছে সবুজ এলাকা।

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্সের (বিআইপি) গবেষণা অনুসারে, ২৮ বছরে ঢাকায় সবুজ এলাকা কমে হয়েছে ৯ শতাংশ। অন্যদিকে দুই দশকে কংক্রিটের আচ্ছাদন বেড়ে হয়েছে ৮২ শতাংশ।

বুধবার রাজধানীর বাংলামোটরে প্ল্যানার্স টাওয়ারের বিআইপি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ‘ঢাকায় তাপদাহ: নগর–পরিকল্পনা ও উন্নয়ন ব্যবস্থাপনার দায় ও করণীয়’ শীর্ষক সংলাপে এসব তথ্য উঠে আসে।

মূল প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন বিআইপির সভাপতি পরিকল্পনাবিদ অধ্যাপক ড. আদিল মুহাম্মদ খান। উপস্থাপিত প্রতিবেদনে তিনি বলেন, ঢাকা শহরে সবুজ যেমন কমেছে, ঠিক তেমনি গত দুই দশকে বেড়েছে মাত্রাতিরিক্ত ধূসর এলাকা ও কংক্রিটের পরিমাণ। যা নগর এলাকায় তাপমাত্রা বাড়িয়ে দিচ্ছে মারাত্মক হারে, বাড়ছে আরবান হিট আইল্যান্ডের প্রভাব।



২০১৯ সালে করা বিআইপির গবেষণা অনুসারে, কংক্রিট আচ্ছাদিত এলাকা ১৯৯৯ সালে ছিল ৬৪ দশমিক ৯৯ ভাগ, ২০০৯ সালে বেড়ে হয় ৭৭ দশমিক ১৮ ভাগ, আর ২০১৯ সালে এসে দাঁড়িয়েছে ৮১ দশমিক ৮২ শতাংশে।

২০২৩ সালে বিআইপির প্রকাশিত আরেকটি গবেষণা প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২৮ বছরে রাজধানী ঢাকার সবুজ এলাকা কমে মাত্র ৯ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। জলাভূমি নেমে এসেছে মাত্র ২ দশমিক ৯ শতাংশে।

যদিও নগর–পরিকল্পনার মানদণ্ড অনুযায়ী, একটি আদর্শ শহরে ২৫ শতাংশ সবুজ এলাকা এবং ১০ থেকে ১৫ শতাংশ জলাশয়–জলাধার থাকার কথা। এরই পাশাপাশি ভবনের নকশায় প্রাকৃতিক আলো–বাতাস চলাচলকে ব্যাহত করে দিয়ে আবদ্ধ ঘর, কাচ নির্মিত ঘর ও এসি ব্যবহারকে মাথায় রেখে ভবন নির্মাণের প্রবণতার কারণে মহানগরীতে তাপমাত্রা বাড়ছে।

সংলাপে জানানো হয়, ঢাকা মহানগরীতে তাপমাত্রা বৃদ্ধি ও দাবদাহের প্রভাবের মূলে ভূমি আচ্ছাদনের (সবুজ, পানি ও ধূসর বা কংক্রিট আচ্ছাদন) মাধ্যমে পরিবেশের ভারসাম্য বিনষ্ট, কংক্রিটের পরিমাণ মাত্রাতিরিক্ত বৃদ্ধি, ভবনের নকশায় পরিবেশ ও জলবায়ুর ধারণা অনুপস্থিত, কাচ নির্মিত ভবন ও এসি–নির্ভর ভবনের নকশা তৈরি, খাল–পুকুর ভরাট, দখল ও ধ্বংস, সবুজ এলাকা নষ্ট করে অপরিকল্পিত স্থাপনা নির্মাণ, বনায়ন না করাসহ অনেক কারণ রয়েছে।

ঢাকার বাতাসে উত্তাপ বাড়াচ্ছে বিভিন্ন ধরনের ক্ষতিকর গ্যাস। ময়লার ভাগাড়, ইটভাটা, যানবাহন ও শিল্পকারখানার ধোঁয়া থেকে তৈরি হচ্ছে এসব গ্যাস।

অধ্যাপক ড. আদিল মুহাম্মদ খান বলেন, ‘ঢাকায় কংক্রিটের জঞ্জাল বাড়ছে। এতে পরিবেশ ভারসাম্য হারিয়ে ফেলছে। আমরা গবেষণার তথ্য–উপাত্ত উপস্থাপন তুলে ধরলেও সরকার কোনো কর্ণপাত করছে না। এভাবে চলতে থাকলে রাজধানীর পরিবেশ আরও বিপজ্জনক হয়ে উঠবে।’

অনুষ্ঠানে বিআইপির সাধারণ সম্পাদক পরিকল্পনাবিদ শেখ মুহম্মদ মেহেদী আহসান বলেন, বৈশ্বিক উষ্ণায়নের কারণে পুরো পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা ১ থেকে ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়ার কথা বলা হলেও ঢাকা শহরের বিভিন্ন জায়গায় এই তাপমাত্রা ৫ থেকে ৬ ডিগ্রি বৃদ্ধি পেয়েছে। এর কারণ মূলত ঢাকা শহরের আশপাশের প্রাকৃতিক সম্পদের অপব্যবহার এবং নগরায়ণের নামে চালানো ধ্বংসযোগ্য।

সংলাপে নগর এলাকার প্রান্তে সবুজ বেষ্টনী প্রকল্প করার দাবিসহ বিআইপির পক্ষ থেকে কয়েকটি প্রস্তাবনা তুলে ধরা হয়। এ সময় আরও বক্তব্য দেন পরিকল্পনাবিদ মো. আবু নাইম সোহাগ, পরিকল্পনাবিদ হোসনে আরা, মো. রেদওয়ানুর রহমান প্রমুখ।

“Green Page” কে সহযোগিতার আহ্বান

সম্পর্কিত পোস্ট

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত