32 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
সন্ধ্যা ৬:২৩ | ১৫ই জুলাই, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৩১শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
কালাডুমুর নদ ভরাট হচ্ছে বাজারের ময়লা আবর্জনায়, বিপর্যস্ত পরিবেশ
পরিবেশ দূষণ

কালাডুমুর নদ ভরাট হচ্ছে বাজারের ময়লা আবর্জনায়, বিপর্যস্ত পরিবেশ

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর বাজারের কালাডুমুর নদের উৎসমুখে ফেলা হচ্ছে বাজারের ময়লা আবর্জনা । নদটির পাশে অবস্থিত গৌরীপুর সুবল আফতাব উচ্চ বিদ্যালয়।বিদ্যালয়সংলগ্ন কালাডুমুর নদীর উৎসমুখে ময়লা আবর্জনা ফেলায় দূষিত বায়ুতে শিক্ষার্থীরা নিয়মিত আক্রান্ত হচ্ছে।ফলে ময়লা-আবর্জনার পচা দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে চারদিকে। নদের উৎসমুখে বাজারের ময়লা-আবর্জনা ফেলায় পরিবেশের মারাত্মক বিপর্যয় ঘটছে।

তাছাড়া নদটির উৎসমুখটি ভরাট হয়ে গেলে বৃষ্টির পানি আটকে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হবে। এতে উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের মাঠের বিভিন্ন ফসল পচে নষ্ট হয়ে যাবে। নদে আর নদসংলগ্ন খালে স্বাভাবিক চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে। পলি মাটির অভাবে মাঠের জমি উর্বরতা শক্তি কমে যাবে। ক্ষতিগ্রস্ত হবে স্থানীয় মৎস্য চাষিরা।

এছাড়া প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন-২০০০ ও পরিবেশ সংরক্ষণ আইন (২০১০ সালে সংশোধিত) অনুযায়ী পুকুর বা অন্য কোনো ধরনের জলাশয় ভরাট করা বেআইনি।

গৌরীপুর সুবল আফতাব উচ্চবিদ্যালয়ের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আবুল কাশেম বলেন, নির্দিষ্ট জায়গা না থাকায় দীর্ঘদিন ধরে একশ্রেণির লোক রাতের আঁধারে গৌরীপুর বাজারের সব ময়লা-আবর্জনা কালাডুমুর নদের উৎসমুখ এবং সংলগ্ন খালে ফেলছেন। ময়লা-আবর্জনার পচা দুর্গন্ধে গৌরীপুর সুবল আফতাব উচ্চ বিদ্যালয়সহ আশপাশের বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং এলাকাবাসী অতিষ্ঠ হয়ে পড়ছে।

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক মো. সেলিম মাস্টার বলেন বৃহত্তর গৌরীপুর বাজারের ময়লা-আবর্জনা বিদ্যালয়সংলগ্ন কালাডুমুর নদীর উৎসমুখে ফেলায় দূষিত বায়ুতে শিক্ষার্থীরা নিয়মিত আক্রান্ত হচ্ছে। অতিসত্বর এর প্রতিকার করা না হলে, বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বড় ধরনের অসুখ-বিসুখে আক্রান্ত হবেন।

উৎসমুখে ময়লা-আবর্জনা ফেলা বন্ধ করার লক্ষ্যে গৌরীপুর সুবল আফতাব উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি ১৯৯৬ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন।

পরে তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুহাম্মদ আল-আমিন সাহেব ভেকুর সাহায্যে ময়লা-আবর্জনা নদের উৎসমুখ থেকে পরিষ্কার করেন। এরপর থেকে বাজারের ময়লা-আবর্জনা আবার ফেলা হচ্ছে।

গৌরীপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান হাজি আবুল হাশেম সরকার বলেন, এলাকার কয়েকটি মাঠের ফসল রক্ষার্থে কালাডুমুর নদ থেকে মাইথারকান্দি হয়ে ইছাপুর পর্যন্ত খালটি খননের জন্য বরাদ্দ চেয়ে ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) প্রধান কার্যালয়ে আবেদন করেছি। এদিকে উপজেলার আদমপুর গ্রামের কাছে কালাডুমুর নদ পুনঃখননের দাবিতে এলাকাবাসী মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা আসছে।

এই ব্যাপারে দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম খান বলেন, নদের উৎসমুখে ময়লা-আবর্জনা ফেলা বন্ধ করতে এলাকার জনপ্রতিনিধি, সচেতন মহল, গণমাধ্যমকর্মী ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়া হবে।

সম্পর্কিত পোস্ট

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত