27 C
ঢাকা, বাংলাদেশ
সকাল ৯:৫৩ | ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
গ্রীন পেইজ
অ্যান্টার্কটিকার ডেনম্যান হিমবাহ
প্রাকৃতিক দুর্যোগ রাহিল খান

অ্যান্টার্কটিকার ডেনম্যান হিমবাহ বিশ্বের গভীরতম উপত্যকায় ডুবে যাচ্ছে

অ্যান্টার্কটিকার ডেনম্যান হিমবাহ বিশ্বের গভীরতম উপত্যকায় ডুবে যাচ্ছে

রাহিল খান

গলে যাওয়া হিমবাহটি সমুদ্রের পানির স্তর প্রায় ৫ ফুট (১.৫ মিটার) বাড়িয়ে তুলতে পারে।

ডেনম্যান সমুদ্রপৃষ্ঠ হতে প্রায় ১১,০০০ ফুট (৩,৫০০ মিটার) নীচে ডুবে গেছে এবং ইহা শীঘ্রই একটি বিশাল মৃত হিমবাহের সমাধিস্থল হতে পারে। ( Image: © NASA’s Scientific Visualization Studio)
ডেনম্যান সমুদ্রপৃষ্ঠ হতে প্রায় ১১,০০০ ফুট (৩,৫০০ মিটার) নীচে ডুবে গেছে এবং ইহা শীঘ্রই একটি বিশাল মৃত হিমবাহের সমাধিস্থল হতে পারে। ( Image: © NASA’s Scientific Visualization Studio)

অ্যান্টার্কটিকার হিমবাহসমূহ অভূতপূর্ব হারে গলে যাচ্ছে এবং মহাদেশের পাথরের এক বিশাল গিরিখাত বিষয়টিকে আরও খারাপ করতে পারে।

পূর্ব অ্যান্টার্কটিকার ১২ মাইল (২০ কিলোমিটার) প্রশস্ত ডেনম্যান হিমবাহ এবং উহার নীচের প্রস্তরসমূহ (bedrocks) ২০ বছরেরও বেশি সময় ধরে উপগ্রহ কর্তৃক গৃহিত তথ্যাদি পর্যবেক্ষণ করা একটি গবেষণা গত ২৩ মার্চ ২০২০ তারিখে জিওফিজিকাল রিসার্চ লেটারস জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষকরা আবিষ্কার করেছেন যে, ডেনম্যানের পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রান্তটি ১৯৯৬ হতে ২০১৮ সালের মধ্যে প্রায় ৩ মাইল (৫ কিলোমিটার) সংকুচিত হয়েছে বা সমুদ্রে হারিয়ে গিয়েছে। সম্ভবত হিমবাহের নীচে অবস্থিত গভীর গিরিখাতটি হিমবাহটিকে দ্রুত গলে যাওয়ার কারণ ঘটাতে পারে।

ডেনম্যান হিমবাহের কুপটি পশ্চিম দিকটি সমুদ্রপৃষ্ঠের কমপক্ষে ১১,০০০ ফুট (৩,৫০০ মিটার) নিচে নিমজ্জিত হয়ে পৃথিবীর গভীরতম উপত্যকার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে।

এভাবে হিমবাহের প্রান্তটি আরও গলে সংকুচিত হতে থাকবে এবং তথায় সমুদ্রের উষ্ণ জল প্রবাহিত হয়ে পরিপূর্ণ হবে এবং হিমবাহের আরও বড়ো বড়ো বরফ খন্ডসমূহকে ধীরে ধীরে গলিয়ে ফেলবে।

এতে করে ডেনম্যান কূপ গলিত জলের বিশালাকার বাটিতে পরিণত করবে।

গবেষকরা লিখেছেন, এই দৃশ্যপট শেষ পর্যন্ত ডেনম্যান হিমবাহের সমস্ত বরফ গলে যেয়ে বরফ গলা পানি সমুদ্রে ফেরত আসবে, যার ফলে সমুদ্রের পানির উচ্চতা প্রায় ৫ ফুট (১.৫ মিটার) বৃদ্ধি পাওয়ার ঝুঁকি দেখা দিবে।

নাসার জেট প্রোপালশন ল্যাবরেটরির পোস্টডক্টোরাল সহযোগী লিড স্টাডি লেখক ভার্জিনিয়া ব্র্যাঙ্কাটো,এক বিবৃতিতে বলেছেন

“ডেনম্যানের পশ্চিমাঞ্চলের নীচের স্থলটির আকারের কারণে হিমবাহটি গলে দ্রুত এবং অপরিবর্তনীয় সংকুচিত হওয়ার আশংকা রয়েছে এবং এর অর্থ ভবিষ্যতে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা যথেষ্ট পরিমাণে বৃদ্ধি পাবে,” ।

ডেনম্যান হিমবাহের তলদেশ
এই মানচিত্রটিতে ডেনম্যান হিমবাহের তলদেশের লাইনটি ১৯৯৬ (কালো রেখা) হতে পরিবর্তিত হয়ে ২০১৮ (হলুদ রেখা) এর মধ্যে দেখায়। হিমবাহের তলদেশের পাথরের গভীরতা ডেনম্যান কুপকে প্রকাশ করছে, যেখানে উপত্যকাটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১১০০০ ফুট (৩৫০০ মিটার) সর্বোচ্চ গভীরতায় পৌঁছে হিমবাহের তলদেশের লাইন (grounding line)টি ইতোমধ্যে গিরির প্রাচীরের নিচু হতে শুরু করেছে। (Image credit: AGU/ Brancato et. al)

হিমবাহসমূহ পাথরের উপরে অবস্থিত দৈত্যাকার বরফের বিশাল ফলক (slab)। ডেনম্যানসহ অ্যান্টার্কটিকার বেশিরভাগ হিমবাহ হ’ল বড় বরফের তাক (large ice shelves) যা “জিহ্বা” এর মত স্থল থেকে দূরে সমুদ্র সংযোগস্থলে সমাপ্ত হয়েছে।

সমুদ্রে শেষ হওয়া হিমবাহের এই খোলা অংশে যেখানে তাদের প্রান্তগুলি ধীরে ধীরে টুকরো টুকরো হয়ে নতুন হিমশৈল (new icebergs ) গঠিত হয়।। যে পয়েন্টটিতে হিমবাহ প্রথমে তলার পাথর (bedrock) ছেড়ে জলে ভাসতে শুরু করে তাকে তলদেশের রেখা বা গ্রাউন্ডিং লাইন বলে।

এই লাইনের অবস্থান হিমবাহের স্থায়িত্বের মূল বিষয়; উষ্ণ সমুদ্রের জল যখন উন্মুক্ত হিমবাহের বরফটি গলে যায়, গ্রাউন্ডিং লাইনটি আরও বেশি দূরে এবং পিছনে হিমবাহের দিকে সরে আসে অর্থাৎ হিমবাটি সংকুচিত হয়।

ইহাতে হিমবাহের নিকটবর্তী বরফসমূহ কম স্থিতিশীল হয়ে যায় এবং গলে যাওয়া এবং ফাটলের আরও প্রবণতা তৈরি করে। এ প্রক্রিয়ায় হিবাহগুলো আয়তন হারাতে থাকে এবং সংকুচিত হতে থাকে।



নতুন সমীক্ষায় গবেষকরা ১৯৯৬ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে ২২ বছরে ডেনম্যান হিমবাহের গ্রাউন্ডিং লাইনটি কতটা পিছিয়ে গেছে এবং গলিত বরফের ফলে হিমবাহটি কতটা ক্ষয় প্রাপ্ত হয়েছে তা পরিমাপ করতে জার্মান অ্যারোস্পেস সেন্টার এবং ইতালিয়ান স্পেস এজেন্সি থেকে উপগ্রহ তথ্য ব্যবহার করেছে।

তারা ব্যাপক গলে যাওয়ার দৃশ্য দেখেছে – ডেনম্যান এ দুই দশকে ২৬৮ বিলিয়ন টন বরফ হারিয়েছে – এটা কেবল হিমবাহের পশ্চিম দিকের পশ্চাদপসরণের (সংকোচনের ) আশঙ্কাজনক হার।

ডেনম্যানের পূর্ব দিকের সামান্য অংশ সংকোচনের সময় (যেখানে একটি পাথুরে পর্বত গ্রাউন্ডিং লাইনকে স্থির করে রেখেছে), হিমবাহের পশ্চিমাঞ্চলটি প্রায় ৩ মাইল (৫ কিমি) সরে এসে (সংকোচিত হয়ে) বিশাল ডেনম্যান কুপের ঢালু অংশে নিমজ্জিত হয়েছে।

গবেষকর লিখেছেন, বর্তমান বৈশ্বিক উষ্ণায়নের প্রবণতা যদি অব্যহত থাকে তবে সেই গর্ত ডেনম্যান হিমবাহের জন্য ধ্বংসের কারণ হতে পারে।

হিমবাহের গ্রাউন্ডিং লাইনটি উপত্যকাগুলোর (যা ইতোমধ্যে সমুদ্রের তলদেশের নীচে বসে আছে) আরও নিচে ডুবে যেতে থাকবে, উষ্ণ সমুদ্রের জল হিমবাহের প্রান্তের বৃহত্তর এবং বৃহত্তর অংশকে গলিয়ে ফেলবে, যার ফলে এটি আরও দ্রুত গলে যাবে এবং অনিশ্চিত বরফের তাকটিকে আরও বেশি করে ধসের ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলবে।

গবেষকরা গবেষণায় লিখেছেন, সম্ভবত ডেনম্যান হিমবাহটি সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির “বড় পরিণতি” ঢেকে আনবে।

এই আশংকাটি বিজ্ঞানীদের কাছে সতর্কবার্তা হওয়া উচিত যারা পূর্ব এন্টার্কটিকায় দ্রুত গলে যাওয়া পাইনা দ্বীপ এবং পশ্চিম অ্যান্টার্কটিকার থাইয়েটস হিমবাহের তুলনায় তুলনামূলকভাবে অধিক হুমকি হিসাবে বিবেচনা করছেন।

গবেষণার সহ-লেখক এরিক রিগনট, ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, ইরভিন, ক্যালিফোর্নিয়া এর Earth system science এর অধ্যাপক, এক বিবৃতিতে বলেছেন”পশ্চিম অ্যান্টার্কটিকার বরফ সাম্প্রতিক বছরগুলিতে দ্রুত গলে যাচ্ছে, তবে ডেনম্যান গ্লিসিয়ার নিখুঁত আকারের অর্থ দীর্ঘমেয়াদী সমুদ্রপৃষ্ঠের বৃদ্ধির উপর এর সম্ভাব্য প্রভাব ঠিক তাৎপর্যপূর্ণ,” ।
Originally published on Live Science (Writer: Brandon Specktor)

সম্পর্কিত পোস্ট

Green Page | Only One Environment News Portal in Bangladesh
Bangladeshi News, International News, Environmental News, Bangla News, Latest News, Special News, Sports News, All Bangladesh Local News and Every Situation of the world are available in this Bangla News Website.

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আপনি এটির সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি ইচ্ছা করলেই স্কিপ করতে পারেন। গ্রহন বিস্তারিত